বর্তমানে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের বেশিরভাগই তরুণ

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১; সময়: ৭:২৩ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বর্তমানে কোভিড-১৯ এ বেশিরভাগই তরুণরা সংক্রমিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশিদ আলম। রোববার রাজধানীর শ্যামলীতে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট টিবি হাসপাতালে একটি কর্মশালায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, “এখন যেসব কোভিড রোগী রয়েছেন তাদের বেশিরভাগের আইসিইউ প্রয়োজন হচ্ছে। তরুণরাই আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি। আগে আমরা দেখেছি যাদের কোমর্বিডিটি আছে, তারাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। কিন্তু এখন দেখছি তরুণ, ভালো ও সুস্বাস্থ্যের অধিকারীরা আক্রান্ত হচ্ছেন।”

“গত দুই মাসে আমার কাছে আইসিইউ বেডের জন্য কোন অনুরোধ আসেনি। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে প্রতিদিনই কিছু না কিছু ফোন পাচ্ছি, আইসিইউ বেড পাওয়া যাচ্ছে না।”

“গত দু’মাসে আমরা যেহেতু স্বস্তিতে ছিলাম, এখন আমরা কোনও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করছি না। স্বাস্থ্যবিধি অবহেলা করতে থাকলে সামনেই দেশের বিপদ রয়েছে।”

ডা. খুরশিদ আলম আরও বলেন, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ দেশের সকল হাসপাতালকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছে।

“দেশের সব কোভিড হাসপাতালের সাথে বসেছিলাম। কারো হয়তো রোগী কম হওয়ায় নন-কোভিড করা হয়েছিলো, সেগুলো আবারও প্রস্তুত করা হচ্ছে।আইসিইউতে যে কয়টি বেড আছে সেগুলো রেডি রাখতে হবে। কোন যন্ত্রপাতি না থাকলে তা আনতে হবে।” বলেন তিনি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রধান জানান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার বিষয়ে ইতোমধ্যেই সকল স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে।

কোভিড-১৯ এর দক্ষিণ আফ্রিকা ও যুক্তরাজ্যের নতুন ধরন বাংলাদেশে সংক্রমণ আরও বাড়াচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের মাধ্যমে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ক্রয়কৃত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের পরবর্তী চালান খুব শীঘ্রই দেশে পৌঁছে যাবে।

জনগণকে ভ্যাকসিন গ্রহণের পরও স্বাস্থ্য বিধি মানার আহ্বান জানান তিনি।

স্বাস্থ্য বিধিমালা অনুসরণের গুরুত্বের উপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, “প্রথম ডোজ নেওয়ার পর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সেইভাবে সৃষ্টি হয় না, যদিও দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরও এই প্রতিরোধ ক্ষমতা কত দিন স্থায়ী হবে তা এখনও অনিশ্চিত।”

  • 56
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে