গর্ভধারণের সম্ভাবনা বাড়াবে যেসব খাবার

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১১, ২০২২; সময়: ১১:২৬ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আপনি প্রতিদিন যেসব খাবার খাচ্ছেন, তা আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলে। যদি আপনি স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার খান তবে একটি ফিট এবং দীর্ঘ জীবন উপভোগ করবেন।

যদি আপনার খাবারের তালিকা ট্রান্স ফ্যাট এবং লবণ দিয়ে ভরা থাকে তবে দীর্ঘস্থায়ী রোগ হওয়ার ঝুঁকি থাকে। যারা গর্ভধারণের চেষ্টা করছেন তাদের সুস্থ গর্ভধারণের সম্ভাবনা বৃদ্ধিতে একটি বড় ভূমিকা পালন করে খাবার।

টিএইচ চ্যান স্কুল অফ পাবলিক হেলথ এবং হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের গবেষকদের মতে, প্রাকৃতিকভাবে গর্ভধারণ করতে চাওয়া নারীদের সম্ভাবনা বাড়ানোর জন্য অবশ্যই কিছু নির্দিষ্ট ভিটামিন এবং খনিজযুক্ত খাবার খেতে হবে। তারা তিনটি পুষ্টির তালিকা তৈরি করেছেন, যা ফার্টিলিটি বাড়ানোর ক্ষেত্রে সহায়ক হতে পারে-

ফলিক অ্যাসিড-

ফলিক অ্যাসিড হলো ভিটামিন বি৯ এর একটি রূপ। স্বাস্থ্যকর লোহিত রক্তকণিকা তৈরি করতে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং ক্লান্তি কমানোর জন্য এটি শরীরের প্রয়োজন।

এই পুষ্টির অভাব হলে তা জন্মগত ত্রুটি এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। ফলিক অ্যাসিড হলো ভিটামিন বি৯ এর একটি সিন্থেটিক ফর্ম, যা সম্পূরক আকারে পাওয়া যায়। এই পুষ্টির প্রাকৃতিক রূপ যা খাদ্য থেকে পাওয়া যায় তাকে ফোলেট বলে।

এই পুষ্টির একটি সাধারণ উৎস হলো সবুজ শাকসবজি। পালং শাক, ব্রকলি, লেটুস, মটরশুটি, মটর, মসুর, লেবু, কলা এবং তরমুজ নিয়মিত খেলে মিলবে ফলিক অ্যাসিড।

ভিটামিন বি১২-

ভিটামিন বি১২ কোবালামিন নামেও পরিচিত। এটি পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিন যা রক্ত ​​গঠন এবং স্নায়ুতন্ত্রের কার্যকারিতার জন্য প্রয়োজনীয়। এটি একটি প্রয়োজনীয় পুষ্টি যা আমাদের শরীর নিজে থেকে তৈরি করতে পারে না, তাই এর জন্য খাদ্য উত্স এবং পরিপূরকের ওপর নির্ভর করতে হয়।

এই পুষ্টির অভাবে নিউরাল টিউবে ত্রুটি হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ৮০-৯০ শতাংশ ভেগান এবং নিরামিষাশীদের ভিটামিন বি১২ এর অভাব রয়েছে।

তাই এ ধরনের ব্যক্তিদের অবশ্যই খাদ্যতালিকায় ভিটামিন বি১২ সাপ্লিমেন্ট অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ভিটামিন বি১২ এর সাধারণ উৎস দুগ্ধজাত পণ্য, মাছ এবং হাঁস-মুরগির মাংসে পাওয়া যাবে।

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড-

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড প্রদাহ কমাতে, রক্তচাপ কমাতে এবং এইচডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে। গর্ভবতী মায়ের ক্ষেত্রে, এই স্বাস্থ্যকর ফ্যাট শিশুর মস্তিষ্ক ও চোখের বিকাশকে সমর্থন করার জন্য এবং অকাল গর্ভপাত রোধ করার জন্য বিশেষভাবে প্রয়োজনীয়।

ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পেরিনেটাল ডিপ্রেশনের উপসর্গ কমাতেও সাহায্য করতে পারে। মাছ, বাদাম, বীজ এবং উদ্ভিদের তেল ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের কিছু সাধারণ উৎস।

গবেষণা কী বলছে-

হার্ভার্ড গবেষণায় আরও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন ডি, দুগ্ধজাত দ্রব্য, সয়া, ক্যাফেইন এবং অ্যালকোহল ফার্টিলিটির ওপর সামান্য বা কোনো খারাপ প্রভাব ফেলে না। কিন্তু অত্যাধিক ট্রান্স ফ্যাট গ্রহণ যেমন প্রক্রিয়াজাত মাংস, মিষ্টি এবং কোমল পানীয় গর্ভাবস্থায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

খাদ্য কীভাবে পুরুষের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে?

শুধুমাত্র নারী নয়, স্ত্রীর গর্ভধারণের চেষ্টা করার সময় পুরুষের খাদ্যতালিকায়ও স্বাস্থ্যকর খাবার অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। গবেষণায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে পুরুষেরা স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে তাদের বীর্যের গুণমান উন্নত হয়, যখন খাবারে স্যাচুরেটেড বা ট্রান্স ফ্যাট বেশি থাকে তখন গুণমান হ্রাস পায়। অ্যালকোহল এবং ক্যাফেইনও গর্ভাবস্থায় কিছু প্রভাব ফেলতে পারে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে