যে সহজ উপায়ে চিনবেন ফরমালিনযুক্ত আম

প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২১; সময়: ২:১৭ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : শুরু হয়েছে মধুমাস। আম, জাম, কাঁঠাল, লিচুর মতো মিষ্টি আর রসালো ফলের দেখা মিলতে শুরু করেছে। ক’দিন পরেই এসব ফলের গন্ধে ম ম করবে চারপাশ। কাঁচা আম দিয়ে নানা স্বাদের জ্যাম, জেলি, মোরব্বা কিংবা আচার তৈরি পালা শেষে, এবার পাকা আমের রসে ডুব দেয়ার পালা। আম পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। অনেকেই শুধু আমের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন বছরের এই সময়টার। আমের রয়েছে নানা প্রজাতি। তার মধ্যে একেক ধরনের আমের স্বাদ একেকরকম।

পাকা আমের মিষ্টি স্বাদ মনকাড়া তাতে সন্দেহ নেই। তবে এই আম যদি ভালো না হয়, আমে যদি ফরমালিন থাকে। সেই স্বাদ তখন শরীরের জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়। ফরমালিনযুক্ত আম খেলে হতে পারে শরীরের নানা সমস্যা। যেমন-কিডনি, লিভার ও বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নষ্ট, বিকলাঙ্গতা, এমনকি মরণব্যাধি ক্যান্সারসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ার ঝুঁকি থাকে। তাই আমে ফরমালিন আছে কিনা তা দেখে কিনুন। ভাবছেন কীভাবে বুঝবেন আমে ফরমালিন আছে কিনা? চলুন জেনে নেয়া যাক সে সম্পর্কে-

আমের রং
ফরমালিনযুক্ত আম রং দেখেও চেনা যায়। প্রাকৃতিকভাবে পাকা আমে হলুদ এবং সবুজের একটা মিশেল থাকবে। অনেক সময় কাঁচাপাকা রঙেও দেখা যায়। আবার আমের গায়ে সাদাটে ভাব ও কালো কালো দাগ থাকবে। তবে ফরমালিনসহ অন্যান্য কেমিকেল দিয়ে পাকানো আমগুলো দেখতে সম্পূর্ণ হলুদ হবে। দেখতে খুব সুন্দর ও চকচকে হবে। কোনো দাগ থাকবে না।

আমের ভেতরের শাস
প্রাকৃতিকভাবে পাকা আম কাটলে এর ভেতরের শাসটি হবে লালচে হলুদ রঙের। তবে ফরমালিন যুক্ত আমের ভেতরের অংশটি হবে হালকা অথবা গাঢ় হলুদ রঙের। এর মানে হলো বাইরে থেকে আমটি পাকা দেখা গেলেও ভেতরটি পাকা নয়।

আমের রস
প্রাকৃতিকভাবে পাকা আম বেশ মিষ্টি হয় এবং এতে অনেক বেশি রস থাকে। তবে ফরমালিনযুক্ত আমে রস অনেক কম থাকে। ভেতরটা পাকা থাকে ঠিকই তবে রস কম বের হয়।

আমের গন্ধ
প্রাকৃতিকভাবে পাকা আমের বোটায় সুঘ্রাণ থাকে। তবে ফরমালিনযুক্ত আমের বোটায় কোনো ঘ্রাণ থাকবে না। তাই কেনার আগে গন্ধ শুকে নিতে পারেন।

আমের স্বাদ
ফরমালিনমুক্ত আম মুখে দিলে টক মিষ্টি স্বাদ পাওয়া যাবে। এছাড়াও এসব আমে মাছি বসবে। তবে ফরমালিনযুক্ত আমে তেমন কোনো স্বাদ পাওয়া যাবে না। এগুলোতে মাছিও বসে না। চিকিত্‍সকরা বলেন, ফরমালিনযুক্ত আম খেলে মুখের ভেতর হালকা জ্বালাপোড়া করতে পারে। কারো কারো পেটে ব্যথা, গলা জ্বলা ও ডাইরিয়াও হতে পারে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে