এখনও চড়া পেঁয়াজের দাম

প্রকাশিত: নভেম্বর ৮, ২০১৯; সময়: ১০:৩৯ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : রাজধানীর বাজারগুলোতে পেঁয়াজের দাম এখনও আকাশচুম্বী। এরসঙ্গে কয়েক সপ্তাহ ধরে সব ধরনের সবজিও বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। যদিও সরবরাহের ঘাটতি নেই। ডিমও বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে চাল, মাছ, গরুর মাংস ও মুরগির দাম স্থিতিশীল রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, শান্তিনগর কাঁচাবাজার, নয়বাজার ও রামপুরা কাঁচাবাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

এদিন শিম বিক্রি হয় ১১০-১২০ টাকা কেজি দরে। প্রতি পিস ফুলকপি ৩০-৪০ টাকা ও মুলা ৬০-৬৫ টাকা বিক্রি হয়। ছোট আকারের লাউ প্রতি পিস ৭০-৮০ টাকা, পাকা টমেটো মান ও আকার ভেদে কেজি ১০০-১৩০ টাকা, গাজর ৮০ টাকা, করলা ৭০-৮০ টাকা, বেগুন ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। তবে নয়াবাজারে বেগুন ৬০-৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে।

কারওয়ান বাজারের সবজি বিক্রেতা মো. লিয়াকত আলী বলেন, ‘শীতের সবজি আসতে শুরু করেছে। তাই দাম একটু বেশি। কৃষকরা বেশি লাভের জন্য আগাম শীতের সবজি চাষ করেছেন। তারা বেশি দরেই বিক্রি করছে।

আর পাইকাররাও বেশি দরে কিনে বেশি দরে বিক্রি করছেন। এ কারণে খুচরা বাজারে দাম বেশি। তবে শীত বাড়ার সঙ্গে সবজির সরবরাহ বাড়বে। সে সময় দাম কমবে।’

একই বাজারে নিত্যপণ্য কিনতে আসা মো. মিনহাজুল আবেদিন বলেন, ‘সরবরাহের ঘাটতি নেই, তারপরও বাজারে সব ধরনের সবজির দাম চড়া।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাজারগুলোতে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয় ১৩০-১৪০ টাকা। মিয়ানমারের পেঁয়াজ বিক্রি হয় ১২৫-১৩০ টাকা। দেশি রসুন বিক্রি হয় কেজি ১৫০-১৬০ টাকা।

আমদানি করা রসুন বিক্রি হয় ১৪০-১৫০ টাকা। নয়াবাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা মো. হাকিম বলেন, পেঁয়াজের দাম কমছেই না। পণ্যটি কিনতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে। অন্যদিকে মাছ বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক কেজি ৩০০ থেকে এক কেজি ৪০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ কেজি বিক্রি হয় ৯০০-১০০০ টাকা।

এক কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হয় ৮০০ টাকা। ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হয় ৬০০-৭০০ টাকা। ৪০০-৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি বিক্রি হয় ৩৫০-৪৫০ টাকা।

এছাড়া প্রতি কেজি তেলাপিয়া বিক্রি হয় ১৫০-১৬০ টাকা, পাঙ্গাশ বিক্রি হয় ১৬০ টাকা কেজি, চাষের রুই কেজি ৪০০ টাকা, পাবদা ৬৫০-৭৫০ টাকা কেজি বিক্রি হয়।

টেংরা বিক্রি হয় কেজি ৬০০-৭০০ টাকা দরে।

এদিকে গত সপ্তাহের মতো প্রতি হালি ফার্মের ডিম বিক্রি হয় ৩৮-৪০ টাকা। তবে কমেছে ব্রয়লার মুরগির দাম। এদিন বাজারে এক কেজি ওজনের ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হয় ১৩০-১৩৫ টাকা। গরুর মাংস ৫৫০-৫৭০ টাকা ও খাসির মাংস ৭৫০-৮৫০ টাকা কেজি বিক্রি হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • ১ আগস্ট ঈদ ধরে নিয়ে বেতন-বোনাস পাবেন সরকারি কর্মচারীরা
  • পুঠিয়ায় দুই বছরে কৃষি জমি নষ্ট করে ১২১টি পুকুর খনন
  • পোরশায় কাভার্ডভ্যানের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত
  • পাবনা রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে দ্বিতীয় ইউনিটের আরপিভি সম্পন্ন
  • পদ্মায় নৌকাডুবি : ২য়দিনে একজনের মরদেহ উদ্ধার
  • রাজশাহী হাসপাতালে কারাবন্দি বিএনপি নেতার মৃত্যু
  • আরডিএর নকশা লঙ্ঘন করে ভবন নির্মাণ
  • ১৪ দলের মুখপাত্র আমু
  • রাজশাহী বিভাগে করোনা পরিস্থিতির আরও অবনতি
  • অনলাইন ক্লাস চালুর পরিকল্পনা আছে সরকারের
  • পাবনায় বন্দুকযুদ্ধে যুবক নিহত
  • করোনার লক্ষণগুলো কতটা মারাত্মক?
  • মেক্সিকোয় প্রাণহানি ৩২ হাজার ছাড়াল
  • রাণীনগরে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার
  • আত্রাইয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা
  • উপরে