দোহায় বৈঠকে বসছে আফগান সরকার ও তালেবান

প্রকাশিত: জুলাই ১৭, ২০২১; সময়: ১২:০৬ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর সামরিক জোট ন্যাটোর সেনাদের প্রত্যাহার শুরুর পর থেকে আফগানিস্তানে তালেবানের হামলা বেড়েছে। এ পরিস্থিতিতে আজ শনিবার তালেবান ও আফগানিস্তান সরকারের প্রতিনিধিরা কাতারের রাজধানীর দোহায় বৈঠকে বসছেন। খবর এএফপির। আফগানিস্তানে চলমান লড়াই থামাতে কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন সময়ে দোহায় বৈঠকে বসেছেন এই দুই পক্ষের প্রতিনিধিরা। কিন্তু সংঘর্ষ বেড়ে যাওয়ায় এসব বৈঠকে কোনো অগ্রগতি পরিলক্ষিত হয়নি।

এদিকে আজকের বৈঠকে যোগ দিতে সেখানে গেছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই, সরকারের সাবেক প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ। গতকাল শুক্রবার বিকেলেই দোহায় গিয়েছেন তাঁরা। আফগানিস্তান সরকারের ওই প্রতিনিধিদলে রয়েছেন নাজিয়া আনওয়ারি। প্রতিনিধিদলের মুখপাত্র হিসেবে রয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, তাঁরা দোহায় গেছেন, দুই পক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন, তাঁদের গাইড করবেন এবং সরকারের প্রতিনিধিদের সহযোগিতা করবেন। আলোচনা এগিয়ে নেওয়ার জন্য এসব করবেন তাঁরা।

নাজিয়া আনওয়ারি বলেন, ‘আমরা আশা করছি, খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে এর মধ্য দিয়ে আলোচনায় অগ্রগতি আসবে, দুই পক্ষ একটি সমঝোতায় পৌঁছাবে। আমরা দেখতে পাব, আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠা হয়েছে।’ যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর সামরিক জোট ন্যাটোর সেনাদের প্রত্যাহারের এই প্রক্রিয়াকে কাজে লাগিয়েছে তালেবান। কারণ, এ প্রক্রিয়া শুরুর পর থেকেই হামলার পরিমাণ বাড়িয়েছে তালেবান।

এর মধ্যে আফগানিস্তানের পাকিস্তান সীমান্তে কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ক্রসিং স্পিন বোলডাক পুনর্দখলে তালেবানের সঙ্গে গতকাল তীব্র লড়াই শুরু করেছেন আফগান সেনারা। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন বহুজাতিক বাহিনী তাঁদের সেনা প্রত্যাহারের কাজ জোরদার করার পর থেকে তালেবান যোদ্ধারা একের পর এক এলাকা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিচ্ছেন। তালেবান গত বুধবার স্পিন বোলডাক সীমান্ত ক্রসিং দখল করার কথা জানিয়েছিল। ঘটনাস্থল থেকে এএফপির সংবাদদাতারা জানান, গত বৃহস্পতিবার রাতে আফগান বাহিনীর সঙ্গে প্রচণ্ড লড়াইয়ে বেশ কয়েকজন তালেবান যোদ্ধা আহত হয়েছেন। সীমান্তের কাছাকাছি পাকিস্তানের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তাঁরা।

আফগানিস্তানজুড়ে লড়াই ছড়িয়ে পড়তে থাকার প্রেক্ষাপটে ইসলামাবাদের সঙ্গে কাবুলের বাগ্‌যুদ্ধ শুরু হয়েছে। আফগান ভাইস প্রেসিডেন্ট পাকিস্তানের বিমানবাহিনীকে সীমান্ত এলাকায় তালেবানকে ঘনিষ্ঠভাবে সহায়তা করার অভিযোগ করেছেন। তবে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ অভিযোগ নাকচ করে বলেছে, পাকিস্তান নিজ জনগণ ও সেনাদের সুরক্ষায় নিজস্ব ভূখণ্ডের ভেতর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে