যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের গোপন নথি বাসস্টপে

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২১; সময়: ১:৫৭ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক :  যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বেশ কিছু গোপন নথি একটি বাসস্টপে পাওয়া গেছে। স্থানীয় সময় রোববার বিবিসি অনলাইন এ বিষয়ে একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের কেন্ট কাউন্টির একটি বাসস্টপের পেছনের স্যাঁতসেঁতে জায়গায় গত মঙ্গলবার ভোরে গোপন এসব রাষ্ট্রীয় নথি পান এক ব্যক্তি। নাম প্রকাশ না করা ওই ব্যক্তি বুঝতে পারেন, ৫০ পাতার এসব নথিতে স্পর্শকাতর ও গোপন রাষ্ট্রীয় তথ্য রয়েছে। পরে তিনি বিবিসির সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

প্রাপ্ত নথিতে যুক্তরাজ্যের যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস ডিফেন্ডার-সংক্রান্ত তথ্য রয়েছে। আরও রয়েছে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর সেখানে ব্রিটিশ বাহিনীর সম্ভাব্য উপস্থিতিসংক্রান্ত পরিকল্পনার কথা। নথিতে ই–মেইল ও পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন রয়েছে। এসব গোপন নথি যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোনো ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কার্যালয়ের হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

স্পর্শকাতর সামরিক তথ্যসহ রাষ্ট্রীয় এসব গোপন নথি কীভাবে বাসস্টপে গেল, তা কেউ বলতে পারছেন না। বিষয়টি নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা চলছে। এ নিয়ে তদন্তের কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্য সরকার। গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের যুদ্ধজাহাজ এইচএমএস ডিফেন্ডার ক্রিমিয়া উপদ্বীপের কাছের জলসীমা পাড়ি দিচ্ছিল। এ সময় রাশিয়া সেটিকে সতর্ক করে গুলি ও বোমা ছোড়ে। ক্রেমলিনের ভাষ্য, ব্রিটিশ যুদ্ধজাহাজটি অনুমতি না নিয়ে রুশ জলসীমায় প্রবেশ করেছিল। তাই প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। ভবিষ্যতে একই কাজ করলে যুদ্ধজাহাজে বোমাবর্ষণের হুমকি দেয় মস্কো। তবে যুক্তরাজ্য বলে, মস্কোর দাবি সঠিক নয়। আর গুলি ও বোমা ছোড়ার কোনো ঘটনাও ঘটেনি।

কেন্টের বাসস্টপে পাওয়া গোপন নথিতে এই যুদ্ধজাহাজের প্রসঙ্গ রয়েছে। ক্রিমিয়ার কাছ দিয়ে যুদ্ধজাহাজ গেলে মস্কো কেমন প্রতিক্রিয়া দেখায়, তা দেখতে চেয়েছিল যুক্তরাজ্য সরকার। অর্থাৎ ওই এলাকায় যুদ্ধজাহাজ পাঠানোর ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত। বিষয়টি নথিতে আছে।

আগামী সেপ্টেম্বর নাগাদ আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করার কথা। তারপর আফগানিস্তানে যুক্তরাজ্যের সেনাদের সম্ভাব্য উপস্থিতি বিষয়ে পরিকল্পনার কথা রয়েছে গোপন এসব নথিতে। এতে বলা হয়, আফগানিস্তানের বিশেষ কিছু জায়গায় সেনা উপস্থিতি বজায় রাখতে যুক্তরাজ্যকে অনুরোধ করেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন। যুক্তরাজ্য এই অনুরোধ বিবেচনা করছে। ফলে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পরও আফগানিস্তানে ব্রিটিশ সেনাদের উপস্থিতি থেকে যেতে পারে।

এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বিবিসিকে বলেন, রাষ্ট্রীয় গোপন নথি বাসস্টপে পাওয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু হয়েছে। যদিও মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মী নথিগুলো হারিয়ে যাওয়ার কথা আগে জানিয়েছিলেন।

যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির এমপি ও ছায়া প্রতিরক্ষামন্ত্রী জন হিলি রাষ্ট্রীয় গোপন নথি প্রকাশ হয়ে পড়াকে ‘সরকারের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতি’ বলে মন্তব্য করেছেন। এ ঘটনায় যাতে জাতীয় নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন না হয়, সেই বিষয়ে সতর্ক থাকতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে