চন্দ্রজয়ী মানব মাইকেল কলিন্সের পৃথিবী থেকে চিরবিদায়

প্রকাশিত: এপ্রিল ২৯, ২০২১; সময়: ৩:১৬ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : চন্দ্রজয়ী অ্যাপোলো-১১ মিশনের গুরুত্বপূর্ণ তিন সদস্যের একজন মাইকেল কলিন্স চিরতরে পৃথিবীর মায়া কাটিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের এই মহাকাশচারী ৯০ বছর বয়সে বুধবার মারা গেছেন বলে বিবিসি জানিয়েছে। তার পরিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ক্যান্সারের কাছে হার মানতে হয়েছে তাকে। মৃত্যুর সময় পরিবারের সদস্য পাশেই ছিলেন বলে বিবৃতিতে জানানো হয়।

কলিন্স মারা যাওয়ায় এখন চন্দ্রজয়ী মানবদের মধ্যে ৯১ বছর বয়সী বাজ অলড্রিন কেবল বেঁচে আছেন। নিল আর্মস্ট্রং আগেই মারা গেছেন। ১৯৬৯ সালে পৃথিবীর জন্য ঐতিহাসিক সেই ক্ষণে আর্মস্ট্রং ও অলড্রিন চাঁদে নামলেও কলিন্সের নামা হয়নি।

১৯৬৯ সালের ২০ জুলাই (যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময়) যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান অ্যাপোলো-১১ থেকে চন্দ্রযান ঈগল চাঁদের ট্রাঙ্কুইলিটি বেইসে অবতরণ করে। এর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সময় ৯টা ৫৬ মিনিটে (০২৫৬ জিএমটিতে) নিল আর্মস্ট্রং প্রথম মানুষ হিসেবে চাঁদের বুকে পা রেখে ইতিহাস সৃষ্টি করেন।

এর কিছুক্ষণের মধ্যে বাজ অলড্রিন চাঁদের পিঠে নেমে আর্মস্ট্রংয়ের সঙ্গে যোগ দেন। তাদের অপরসঙ্গী মাইকেল কলিন্স মূল যানে থেকে অভিযানের এক অংশ নিয়ন্ত্রণ করছিলেন। চন্দ্রবিজয়ের অর্ধ শতক উপলক্ষে ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন কলিন্স।

সেখান থেকেই তাদের ঐতিহাসিক মিশন শুরু হয়েছিল। সেই দিনটি স্মরণ করে কলিন্স বলেছিলেন, রকেটের যাত্রার শুরুতেই একটি ধাক্কা (শকওয়েভ) লাগল। পুরো শরীর যেন দুলছিল। এটা অন্য রকম এক অভিজ্ঞতা .. এটা বোঝার জন্য যে আসলে শক্তি বলতে কী বোঝায়। ওই সময় অভিযাত্রীরা তাদের কাঁধে গোটা বিশ্বের ভার অনুভব করে। আমরা জানতাম, পৃথিবীর সবাই আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে, সে শত্রু হোক কিংবা মিত্র।

বিবৃতিতে কলিন্সের পরিবার বলেছে, এই অভিযাত্রী সব সময় চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করতেন। জীবনের শেষ চ্যালেঞ্জও তিনি একইভাবে নিয়েছিলেন। আমরা তার অভাব ভীষণভাবে অনুভব করব। যদিও আমরা জানি কী সৌভাগ্যময় একটি জীবন কাটিয়ে গেছেন তিনি। মাইক চাইত তার জন্য শোক নয়, তার জীবন উদযাপন করতে, তার সেই ইচ্ছার প্রতি আমরা পূর্ণ শ্রদ্ধা রাখি।

  • 117
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে