মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর নির্যাতন, জাতিসংঘের নিন্দা

প্রকাশিত: মার্চ ১১, ২০২১; সময়: ১০:২৯ am |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : মিয়ানমারে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভকারীদের ওপর নির্যাতনের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। তবে চীন, রাশিয়া, ভারত ও ভিয়েতনামের ভেটোর কারণে পহেলা ফেব্রুয়ারির সামরিক অভ্যুত্থানকে ক্যু হিসেবে আখ্যা দিতে ব্যর্থ হয়েছে পরিষদ। এদিকে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভে আবারো গুলি চালিয়েছে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় ২ হাজার আন্দোলনকারীকে। এদিকে জান্তা সরকারের নির্দেশ না মেনে ভারতে পালিয়ে যাওয়া পুলিশ কর্মকর্তা জানালেন, আন্দোলনকারীদের ওপর সামরিক বাহিনীর বর্বরতার কথা।

রয়টার্সের প্রকাশিত ছবিতে গতকাল বুধবার মিয়ানমারের জান্তাবিরোধী আন্দোলনে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলির মুখে প্রাণ বাঁচাতে ছুটোছুটি করেছেন বিক্ষোভকারীরা। ইয়াঙ্গুনের নর্থ দাগনে সেনা অভ্যুত্থানের প্রতিবাদে ধর্মঘট পালনের সময় রেলকর্মীদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলে সেনা মদদপুষ্ট নিরাপত্তা বাহিনী। ছত্রভঙ্গ করতে নির্বিচারে গুলি চালায় তারা।

ম্যান্দালেতেও জান্তাবিরোধীদের ওপর গুলি চালায় পুলিশ। আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে দাওয়ে’ই শহরে রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়। সেনাবাহিনীর কঠোরতা সত্ত্বেও দমে যেতে রাজি নন আন্দোলনকারীরা। দিনদিন আরো ভয়াবহ হয়ে উঠছে ক্যু’বিরোধী বিক্ষোভ। বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের পাশাপাশি দেশটির উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বৌদ্ধ ভিক্ষু আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন। সেনা শাসনের অবসান ঘটিয়ে দেশের শান্তি শৃঙ্খলা ফেরাতে নির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

জান্তাবিরোধীদের বিক্ষোভে দমনপীড়নের পাশাপাশি বিরোধী নেতাদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রেখেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। রয়টার্সের প্রকাশিত আরেকটি ভিডিওতে সু চির দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি এনএলডির নেতা জার মারের বাসায় এভাবেই নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের রেইড দিতে দেখা যায়। পরে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়। এখন পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার রাজনৈতিক নেতাকর্মী আন্দোলনকারীকে গ্রেফতার করেছে সেনা সরকার।

এদিকে, আন্দোলনকারীদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বর্বরতার আরো চিত্র ফাঁস করেছেন ভারতে পালিয়ে যাওয়া মিয়ানমারের এক পুলিশ সদস্য। বিক্ষোভকারীরা সরে না গেলে তাদের ওপর সেনাবাহিনী জোর করে গুলি চালানোর নির্দেশ দিয়েছে বলে জানান সেই সদস্য। বর্তমানে ভারতের মিজোরামে অবস্থান করা পুলিশ সদস্য থা পেং বলেন, সেনাবাহিনীর নির্দেশ মানতে না পারায় চাকরি ছেড়ে ভারতে পালিয়ে যান তিনি। ভারতের কাছে তাকে ফেরত চেয়ে চিঠি পাঠানোর পর থেকে নিরাপত্তাহীনতাই আছেন বলেও জানান থা পেং।

  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে