বিদায়ের আগে বেপরোয়া ট্রাম্প, নিষেধাজ্ঞা বাড়ালেন শ্রমিক ভিসায়

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১, ২০২১; সময়: ৬:০২ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : চলতি মাসেই আমেরিকার মসনদ ছেড়ে দিতে হচ্ছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে। এর আগেই আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠলেন তিনি। ক্ষমতা ছাড়ার আগে অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য দিলেন দুঃসংবাদ। দেশটির ব্যবসায়ীদের আপত্তির মুখে এবার অভিবাসী শ্রমিক ভিসায় নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এর আগে গত বছরের এপ্রিল ও জুনে গ্রিন কার্ডের বেশ কিছু আবেদনকারী এবং অস্থায়ী বিদেশি শ্রমিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন ট্রাম্প। গত বছরের শেষ দিন ৩১ ডিসেম্বর সেই মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু নতুন বছরের প্রথম দিনেই পুরনো পদক্ষেপকে নবায়ন করেন আমেরিকার বিদায়ী প্রেসিডেন্ট।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুসারে, চলতি বছরের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। ট্রাম্পের দাবি, ‘করোনাভাইরাস মহামারিতে অর্থনীতি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই, দেশি শ্রমিকদের রক্ষায় আমেরিকার জন্য এই নিষেধাজ্ঞা জরুরি।’

ট্রাম্পের কথার অবশ্য বাস্তবতাও রয়েছে। চলমান করোনা মহামারিতে দেশটি অর্থনৈতিকভাবে ভেঙে পড়েছে। চাকরি হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছেন প্রায় দুই কোটি মানুষ। যারা সরকারি ভাতায় বর্তমানে জীবনযাপন করছেন। সম্প্রতি আরও এক দফা প্রণোদনা ঘোষণা করেছে দেশটি।

তবে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ট্রাম্প প্রশাসনের এই সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন। যদিও আগামী ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা গ্রহণের পর নিষেধাজ্ঞা তুলে দেবেন কি না সে বিষয়ে তিনি এখনও কিছু বলেননি। তবে প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর এই নিষেধাজ্ঞা তুলে দেওয়া তার জন্য কঠিন কিছু হবে না।

গত অক্টোবরে ক্যালিফোর্নিয়ার এক ফেডারেল বিচারক বিদেশি শ্রমিকদের ওপর ট্রাম্পের ভিসা নিষেধাজ্ঞায় স্থগিতাদেশ দেন। তখন আদালত বলেছিলেন, নিষেধাজ্ঞার কারণে মার্কিন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানগুলোর অপূরণীয় ক্ষতি হতে পারে।

তবে এই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে নবম সার্কিট কোর্ট অব আপিলে আবেদন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ। আগামী ১৯ জানুয়ারি যার শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে, দেশটিতে করোনার তাণ্ডব যেন বেড়েই চলেছে। আগের দিন সর্বোচ্চ মৃত্যুর পর বছরের শেষ দিনে আরও সাড়ে হাজার মার্কিনির মৃত্যু হয়েছে। এতে করে প্রাণহানি বেড়ে ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৪১৩ জনে ঠেকেছে। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ২৮ হাজার ৪১৩ জন মানুষ। এতে করে সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে ২ কোটি ৪ লাখ ৪৫ হাজার ৬৫৪ জনে দাঁড়িয়েছে।

অপরদিকে, সংক্রমণের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা অনেক কম। ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্ত হয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজারের ভুক্তভোগী প্রায়। এতে করে সুস্থতার সংখ্যা ১ কোটি ২১ লাখ ২৫ হাজার ৮০৬ জনে পৌঁছেছে।

গত বছরের ২১ জানুয়ারি শিকাগোর এক বাসিন্দার মধ্যে প্রথম করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এরপর থেকে ক্রমান্বয়ে ভয়ানক হতে থাকে পরিস্থিতি।

  • 20
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে