হাইপারসোনিক বিমান তৈরির প্রতিযোগিতায় পরাশক্তিগুলো

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০; সময়: ২:২২ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ব্রিটিশ কোম্পানি রিঅ্যাকশন ইঞ্জিনের যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রধান অ্যাডাম ডিসেল বললেন, আমার চাকরি জীবনের একটি বড় অংশ কেটেছে দ্রুতগতিতে উড়তে পারে এমন সব বিমান তৈরি করে। এই কোম্পানি এমন এক হাইপারসোনিক বিমান তৈরি করছে যেটি শব্দের চেয়েও পাঁচ গুণ দ্রুতগতিতে উড়তে পারে। অর্থাৎ বিমানটি ঘণ্টায় ছয় হাজার ৪০০ কিলোমিটার পথ উড়তে সক্ষম।

২০৩০ সালের মধ্যে তারা এমন একটি যাত্রীবাহী বিমান তৈরি করবে, লন্ডন থেকে সিডনি যেতে যার সময় লাগবে মাত্র ৪ ঘণ্টা। এখন সময় লাগে ২১ ঘণ্টারও বেশি। লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে টোকিও যেতে এ বিমানের সময় লাগবে মাত্র ২ ঘণ্টা।

তবে হাইপারসোনিক বিমান তৈরির গবেষণার বেশিরভাগ চলছে বেসরকারি বিমান নয়, জঙ্গিবিমান তৈরির লক্ষ্যে। বিবিসির খবরে এমন তথ্য জানা গেছে।

ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান কার্নেগি এনডাউমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিসের পদার্থবিজ্ঞানী জেমস অ্যাকটন বলেন, হাইপারসোনিক অস্ত্র তৈরিতে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং চীন বিভিন্ন ধরনের নকশা নিয়ে কাজ করছে।

তবে হাইপারসোনিক বিমান তৈরির চেষ্টা কিন্তু নতুন নয়। আমেরিকা সেই ১৯৬০ সালেই এক্স-১৫ নামে একটি হাইপারসোনিক রকেট তৈরি করেছিল।

আন্তমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র যাকে আইসিবিএম বলা হয় সেগুলো যখন মহাকাশ থেকে আবার বায়ুমণ্ডলে ফিরে আসে; তখন তার হাইপারসোনিক গতি থাকে।

এখন বিশ্ব পরাশক্তিগুলো এমন অস্ত্র তৈরির চেষ্টা করছে; যেটি বায়ুমণ্ডলের ভেতর দিয়ে উড়ে যেতে পারবে।

উচ্চতাপ থেকে রক্ষার জন্য একে আর মহাশূন্যে পাঠানোরই প্রয়োজন হবে না। আর এই অস্ত্র দিয়ে শুধু শহর নয়, যেসব লক্ষ্য বস্তু নড়াচড়া করতে পারে তাকেও আঘাত করা সম্ভব হবে।

হাইপারসোনিক গবেষণায় অগ্রবর্তী তিনটি দেশই এই খাতে বিপুল সামরিক বরাদ্দ ব্যয় করছে।

সম্প্রতি পেন্টাগনে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে মার্কিন প্রতিরক্ষা বাহিনীর হাইপারসোনিক গবেষণা বিভাগের উপপরিচালক মাইক হোয়াইট বলেন, প্রতিপক্ষ শক্তি তাদের এই ক্ষেত্রে আমাদের শ্রেষ্ঠত্বকে চ্যালেঞ্জ করছে।

এর এটাই এই খাতে মার্কিন গবেষণাকে গতিশীল করছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। হাইপারসোনিক মিসাইল তৈরির মূল সমস্যা লক্ষ্যবস্তুকে আঘাত করার সঠিকত্ব। আর ঠিক এই কারণেই চীনের হাতে হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র থাকলে মার্কিন বিমানবাহী রণতরীগুলোকে চীনা উপকূলকে অনেক দূরে রেখে চলাচল করতে হবে।

হাইপারসোনিক মিসাইল যখন উড়ে যেতে থাকে তখন তাপমাত্রার কারণে মিসাইলের চারপাশে একটা গ্যাসের প্লাজমা আবরণ তৈরি হয়।

এর জন্য মিসাইলের যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিঘ্ন ঘটে। সামরিক যোগাযোগের স্যাটেলাইট মিসাইলকে আর নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না, এবং লক্ষ্যবস্তু যদি চলমান হয় তাহলে মিসাইল আর লক্ষ্যভেদ করতে পারে না।

হাইপারসোনিক মিসাইলের আরেকটি বড় সমস্যা তার রাসায়নিক পরিবর্তন। অতি দ্রুত গতি এবং উচ্চ তাপমাত্রার ফলে অক্সিজেনের অণুগুলো ভেঙে পরমাণুতে পরিণত হয়। সেটা মিসাইলের ইঞ্জিনের দক্ষতাকে অনেকখানি কমিয়ে ফেলে।

কিন্তু এরপরও হাইপারসোনিক গবেষণায় নাটকীয় অগ্রগতি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ২০১০ সালে প্রশান্ত মহাসাগরে হাঙ্গরের মুখের মতো দেখতে এক্স-৫১ হাইপারসোনিক মিসাইলের পরীক্ষা চালিয়েছে যেটি পাঁচ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে হাইপারসোনিক ছিল।

  • 16
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • ভারতে একদিনে আরও ১০৫৩ প্রাণহানি, শনাক্ত ৭৫ হাজারের বেশি
  • বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভ্যাকসিন পরিকল্পনায় যোগ দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র ও চীন
  • চীন-রাশিয়া থেকে অস্ত্র কেনার ঘোষণা ইরানের
  • জাতিসংঘ সম্মেলনে মঙ্গলবার বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী
  • ভারতে ভবনধসে নিহত ১০, আটকা পড়েছেন অনেকেই
  • করোনার ঝুঁকি ৫৪ শতাংশ কমাতে পারে ভিটামিন-ডি: গবেষণা
  • ১০৬ বছর বয়সী বৃদ্ধার মুখে করোনা জয়ের হাসি
  • করোনা থেকে সুস্থ হলেন দুই কোটি ২৮ লাখের বেশি মানুষ
  • বিশ্বে তিন কোটি মানুষ অভুক্ত, সাহায্য প্রয়োজন ধনীদের: বিশ্ব খাদ্য সংস্থা
  • ভারতে করোনার সংক্রমণ ছাড়াল ৫৪ লাখ
  • করোনায় প্রতিটি মৃত্যুর দায় ট্রাম্পের: বাইডেন
  • বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে ৩ কোটি ৬ লাখ, মৃত্যু ৯ লাখ ৫৫ হাজার
  • ট্রাম্পকে পাঠানো চিঠিতে রাইসিন বিষ
  • সোলাইমানির হত্যাকারীদের লক্ষ্যবস্তু করে প্রতিশোধ নেবে তেহরান: ইরান
  • ফ্রান্সে চলছে করোনার দ্বিতীয় ধাপ
  • উপরে