সিলিন্ডার গ্যাসের দাম আরও বাড়ানোর সুপারিশ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১; সময়: ২:৩৮ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ১২ কেজির বোতলজাত এলপিজি গ্যাসের দাম ৬৫ টাকা বৃদ্ধি করে এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা নির্ধারণের সুপারিশ করেছে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)।

সৌদি চুক্তি মূল্য (সিপি) অনুযায়ী সেপ্টেম্বর মাসের এলপিজির সরবরাহ ব্যয় ৯১ দশমিক ৪৮ টাকা প্রতিকেজি হিসেবে ১২ কেজির সিলিন্ডারের দাম এক হাজার ৯৭ টাকা ৭৬ পয়সা করার সুপারিশ করে কমিশন গঠিত কারিগরি কমিটি।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ইস্কাটনে বিয়াম ফাউন্ডেশনের শহীদ এ কে এম শামসুল হক খান মেমোরিয়াল হলে এলপিজির দাম নির্ধারণে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১১টায় শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত গণশুনানি চলে কমিশনের কারিগরি কমিটি এলপিজি অপারেটরদের অন্য দাবিগুলো নাকচ করলেও ডিস্ট্রিবিউটর (পরিবেশক) এবং রিটেইলার (খুচরা বিক্রেতা) কমিশন বাড়ানোর সুপারিশ করেছে। শুনানিতে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) তরফ থেকে বলা হয়েছে, আইনগত দিক বিবেচনা করলে এলপিজি অপারেটরদের এ আবেদন আমলে নেওয়ার যৌক্তিকতা নেই।

বিইআরসির চেয়ারম্যান আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে শুনানিতে কমিশনের সদস্য, অপারেটর প্রতিনিধি, ভোক্তা অধিকার প্রতিনিধি ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিকে এবং সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। কমিশনের কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি এলপিজি বোতলজাত এবং মজুতে চার্জ অপরিবর্তিত রাখতে চাইলেও পরিবেশক এবং খুচরা বিক্রেতার কমিশন বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছে। এলপিজির দাম নির্ধারণে চলতি বছর ১২ জানুয়ারি প্রথম দফা শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ওই শুনানির পর এপ্রিল মাসে প্রথমবার এলপিজির দাম নির্ধারণ করে কমিশন।

অন্যদিকে এলপিজির দাম কার্যকরের বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করার দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর জ্বালানি উপদেষ্টা এবং জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শামসুল আলম। শুনানী অনুষ্ঠিত হলেও বিইআরসি দাম নির্ধারণ করেনি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিইআরসি আরও মতামত নেবে। পরবর্তীতে দামের বিষয়ে আদেশ দেওয়া হবে বলে জানায়।

শুনানিতে বলা হয়, প্রতিমাসে অটোগ্যাসের দাম নির্ধারণের ফলে ভোক্তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিচ্ছে। তারা বিষয়টিকে ভালোভাবে গ্রহণ করছেন না। ফলে সারাবছরের জন্য ভোক্তাদের একটি দামে অটোগ্যাস দেওয়ার সুপারিশ করা হয়। তবে সৌদি সিপি অনুযায়ী এলপিজির দর ওঠা নামা করার ভিত্তিতে একটি দাম প্রস্তাব করা হয়।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, সৌদি সিপিতে এলপিজির দাম টন প্রতি ৫০০ ডলার হলে প্রতি লিটার এলপিজির দাম হবে ৪৫ টাকা। সৌদি সিপিতে ৫০১ থেকে ৬০০ হলে লিটার প্রতি দাম হবে ৫০ টাকা, ৬০১ থেকে ৭০০ ডলার দাম হলে ৫৫ টাকা লিটার প্রতি এলপিজি বিক্রি করতে চায় তারা। ব্যবসায়ীরা বলছেন টেকসই উন্নয়নের জন্য অন্তত দুই বছর পর পর এই দাম পরিবর্তন করা যেতে পারে।

 

  • 32
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে