৬ হাজার টন চাল লোপাট : ১৬ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত: আগস্ট ৩১, ২০২১; সময়: ২:১৯ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সাধারণ সহায়তার (জিআর) বরাদ্দ করা প্রায় ৬ হাজার টন সরকারি চাল আত্মসাতের অভিযোগে ১৬ জন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতাসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের রংপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে সংস্থাটির সহকারী পরিচালক মো. হোসাইন শরীফ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহাম্মদ আরিফ সাদেক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতারা হলেন, গাইবান্ধা জেলার গােবিন্দগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাে. জহিরুল ইসলাম, ওই উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান আকতারা বেগম ও গােবিন্দগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলর মােছা. গােলাপী বেগম।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হলেন- গােবিন্দগঞ্জ উপজেলার ১ নং কামদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. মােশাহেদ হােসেন চৌধুরী, ২ নং কাটাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাে. রেজাউল করিম (রফিক), ৩ নং শাখাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. তাহাজুল ইসলাম, ৪ নং রাজাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আব্দুল লতিফ সরকার, ৫ নং সাপমারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. শাকিল আলম, ৬ নং দরবস্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ. র. ম. শরিফুল ইসলাম জজ, ৭ নং তালুককানুপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আতিকুর রহমান আতিক, ৮ নং নাকাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আব্দুল কাদের প্রধান, ১০ নং রাখালবুরুজ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. শাহদাত হােসেন, ১১ নং ফুলবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আব্দুল মান্নান মােল্লা, ১২ নং গুমানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. শরীফ মােস্তফা জগলুল রশিদ রিপন, ১৩ নং কামারদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. শরিফুল ইসলাম রতন, ১৪ নং কোচাশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. মােশারফ হােসেন, ১৫ নং শিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের সেকেন্দার আলী মন্ডল, ১৬ নং মহিমাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আব্দুল লতিফ প্রধান এবং ১৭ নং শালমারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাে. আমির হােসেন শামীম।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আসামিরা জাল কাগজপত্র তৈরি করে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে গাইবান্ধা জেলার গােবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ধর্মীয় সভার অনুকূলে জিআর এর বরাদ্দকৃত ৫ হাজার ৮২৩ মেট্রিক টন সরকারি চাল উত্তোলন পূর্বক কালােবাজারে বিক্রয় করে। যেখানে তৎকালীন সরকারি আর্থিক মূল্য প্রতি মেট্রিক টন চাল ৩৭ হাজার ৮৩৬ টাকা হিসেবে মােট ২২ কোটি ৩ লাখ ২১ হাজার ৫৯০ টাকা আত্মসাৎ করে দণ্ডবিধির ৪০৯/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরােধ আইনের ৫(২) ধারায় শাস্তিযােগ্য অপরাধ করেছেন বলে দুদকের অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়েছে।

তাই সরকারি চাল আত্মসাতের পরিপ্রেক্ষিতে ১৬ জন চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতা, উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান, কাউন্সিলরসহ মোট ১৯ জনের বিরুদ্ধে দুদক মামলা দায়ের করে।

  • 106
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে