করোনায় বড় লোকসানে রাজশাহী সিল্কের পোশাক খাত

প্রকাশিত: মে ২৮, ২০২০; সময়: ৪:০৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী মহানগরীর সপুরা এলাকায় প্রতিষ্ঠিত রাজশাহী সপুরা সিল্ক ইন্ডাস্ট্রিজ ১৯৭৯ সাল থেকেই সিল্কের তৈরি পোশাক উৎপাদন ও বিপণনের সাথে জড়িত। তারা তাদের নিজস্ব কারখানায় সুতা ও সেই সুতা থেকে পোশাক তৈরি করে থাকেন। সরকারিভাবে লকডাউনের ঘোষণার পর ২৬ মার্চ থেকে তাদের কারখানা ও শো-রুম বন্ধ। সীমিত পরিসরে মার্কেট চালুর ঘোষণার পর থেকেই গত ১২ এপ্রিল থেকে পুরোপুরি সরকারি নিয়মনীতি মেনেই তারা তাদের শো-রুম চালু করেছেন।

রাজশাহী সপুরা সিল্ক ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক সাজ্জাদ আলী জানান, গত দুই মাস ধরে তাদের কারখানা ও শো-রুম বন্ধ ছিলো। সরকারি ঘোষণা ছিলো যাদের কারখানা বন্ধ থাকবে তারা তাদের কর্মচারীদের বেতনের ৬০ শতাংশ দিলেও চলবে। তারপরও আমরা আমাদের ৪০০ কর্মচারীদের সবাইকে মার্চ ও এপ্রিল মাসের পুরো মাসের বেতন দিয়েছি। এই মাসের বেতন ও ঈদের বোনাসও দিবো। শো-রুম সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু করলেও কারখানা এখনো বন্ধই রয়েছে। যতদিন পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হবে ততদিন কারখানা বন্ধই থাকবে।

তিনি জানান, গত তিনি মাসে আমার তিন কোটি টাকা লোকসান হয়েছে। এই লোকসান তুলতেই আমার এক দেড় বছর লেগে যাবে। এরপর করোনা পরিস্থিতির কখন উন্নতি হবে তার কোনো ঠিক ঠিকানা নেই। তারপরও আমরা সরকারি সিদ্ধান্ত মেনেই সব কাজ করবো।

শো-রুমে গিয়ে দেখা যায়, প্রত্যেক ক্রেতাকেই শো-রুমের নিচতলায় জীবাণুশাক দিয়ে পুরো শরীর ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে ভেতরে প্রবেশ করানো হচ্ছে। মেঝেতে ব্লিচিং পাউডার মেশানো পাপোশ রেখে দেওয়া হয়েছে। মূল শো-রুমে প্রবেশের সময় আবার তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। আর ভেতরে তো সামাজিক দূরত্ব মেনেই পণ্য ক্রয় করতে হচ্ছে।

শো-রুমের ম্যানেজার সাইদুর রহমান বললেন, শো-রুম খুললেও বেচাবিক্রি খুব কম হচ্ছে। গতবছর ঈদের কয়েকদিন প্রতিদিন কমপক্ষে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকার বিক্রি হতো। এখন সেখানে ৫ থেকে ৭ লাখ টাকার বিক্রি হচ্ছে। বেশি বিক্রি হচ্ছে বাচ্চাদের পোশাক। আর এখানে যারা আসছেন তারা সবাই সচেতন। সামাজিক দূরত্ব মেনেই পণ্য ক্রয় করছেন।

পাশের ভবনে রয়েছে রাজশাহী ঊষা সিল্কের শো-রুম। সেখানেও একই চিত্র। মূল ফটকে জীবাণুনাশক স্প্রে দিয়ে জীবাণুনাশক করে তাপমাত্রা মেপে তারপর ঢুকতে হচ্ছে শো-রুমে। তবে বেচাবিক্রি কম। সেখানকার বিক্রেতারাও জানালেন বেচাবিক্রি কম হচ্ছে।

ঊষা সিল্ক ইন্ডাস্ট্রিজের ম্যানেজার জহিরুল ইসলাম বলেন, পহেলা বৈশাখ ও দুই ঈদকে কেন্দ্র করেই আমাদের বেচাবিক্রি বেশি হয়। করোনা ভাইরাসের কারণে পহেলা বৈশাখে তো বিক্রিই করতে পারিনি। তখন কমপক্ষে ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। আর ঈদের প্রতিদিন যেখানে কয়েক লাখ টাকার বিক্রি হতো সেখানে ৫০ হাজার টাকাই পুরছে না। আর কারখানা তো বন্ধই রয়েছে। তারপর মালিক আমাদের সবাইকে বেতন দিচ্ছেন। এই ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে কতদিন লাগবে তার কোনো ঠিক নেই।

রাজশাহীর সিল্কের অন্য শো-রুমগুলোর চিত্রই এমনই। লোকসানে পড়ছে সব পোশাকখাতের শো-রুম। প্রায় সব শো-রুমগুলোর মালিকরা জানালেন এই করোনাভাইরাসে তাদের কোটি কোটি টাকা লোকসানে পড়েছেন।

এক সময় রাজশাহীর সিল্কের তৈরি পোশাকের চাহিদা ছিলো আকাশচুম্বী। এখনো ঐতিহ্য বজায় থাকলেও রাজশাহীর রেশম শিল্পখাত ধ্বংসের পথে। কয়েকটা উৎপাদন ও বিপণন প্রতিষ্ঠান লোকসান গুণেই ধ্বংসপ্রায় এ শিল্পকে টিকিয়ে রেখেছেন কোনোরকমে। করোনা ভাইরাসের লকডাউনের কারণে আবারও কোটি কোটি টাকা লোকসানের সম্মুখীন হয়েছে এ শিল্পখাত।

করোনাভাইরাসের লকডাউনে সারাদেশে রেশম শিল্পের ক্ষতি প্রায় ২০০ কোটি টাকা। তাই এ খাতকে টিকিয়ে রাখতে সরকারি প্রণোদনাসহ রেশম শিল্পকে বাঁচাতে সরকারি বিশেষ উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানালেন বাংলাদেশ রেশম শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি মো. লিয়াকত আলী।

তিনি বলেন, এমনিতে তো রেশম শিল্প ধ্বংসের পথে। তারপরও কোনোরকমে চলছিলো এ খাত। করোনা ভাইরাস এসে এখাত ব্যাপক লোকসানে পড়েছে। সারা বাংলাদেশে রেশম শিল্পের ক্ষতি ২০০ কোটি টাকার মতো।

তিনি বলেন, রেশম শিল্পের দুইটি অংশ। একটি গুটি থেকে সুতা উৎপাদন, আরেকটি হচ্ছে বস্ত্রখাত। বস্ত্রখাতের মাধ্যমে পোশাক তৈরি করা হয়। যারা পোশাক তৈরি করে তাদেরও বেচাবিক্রি বন্ধ। শুধু তাই না, চাঁপাই নবাবগঞ্জে প্রায় আড়াইশো তাঁতের সাথে যুক্ত ১০ হাজার শ্রমিক কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তাঁত বন্ধ থাকায় তারা বেতনও পাননি।

তিনি বলেন, এ খাতকে টিকিয়ে রাখতে সরকারি প্রণোদনাসহ সরকারি নার্সারীগুলো বেসরকারি মালিকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দিতে। এজন্য রেশম উন্নয়ন বোর্ডকে এগিয়ে আসতে হবে।

  • 169
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • বিমান বাহিনীতে যুক্ত হলো নাইট ভিশন গগলস
  • করোনা রেড জোনে রাজশাহীর ৫ উপজেলা
  • পাটকল শ্রমিকরা সাড়ে ১৩ লাখ টাকা করে পাবেন
  • রামেক হাসপাতালের ৬৭ জন চিকিৎসক-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত
  • বাংলাদেশে করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কার
  • রাজশাহীতে সাত দিনেই বেড়েছে দ্বিগুণ করোনা রোগি
  • দোকান-শপিংমল খোলা রাখার সময় বৃদ্ধি
  • করোনার কার্যকরী ভ্যাকসিন পাওয়ার নিশ্চয়তা নেই: ফাউচি
  • হলি আর্টিজান হামলার ৪ বছর
  • চীনে নতুন ভাইরাস আবিষ্কার, আরেক মহামারির শঙ্ক
  • গড় আয়ু বেড়ে ৭২.৬ বছর
  • রাজশাহীর আট জেলার জন্য আইসিইউ মাত্র ২৩টি
  • আম পরিবহনে সাড়া ফেলেছে ‘ম্যাঙ্গো স্পেশাল ট্রেন’
  • আম উৎপাদনে রাজশাহী-চাঁপাইকে ছাড়িয়ে নওগাঁ
  • রাজশাহীতে করোনায় সম্মুখযোদ্ধার ৫৩ জন আক্রান্ত
  • উপরে