ডিআইজি মিজান, সাহেদ, সাবরীনারা জামিন পেতে মরিয়া

প্রকাশিত: জুন ১২, ২০২১; সময়: ৯:১২ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ থেকে জামিন নিতে মরিয়া দেশের আলোচিত সমালোচিত মামলার আসামিরা। হাইকোর্টে এক বেঞ্চে খারিজ হয়ে গেলে আরেক বেঞ্চে জামিন আবেদন করছে আসামিরা। তবে মিলছে না জামিন।

দেশজুড়ে চাঞ্চল্যকর ও আলোচিত মামলার প্রায় এক ডজন আসামির জামিন শুনানি সম্প্রতি করোনাকালিন হাইকোর্টের ভার্চুয়াল আদালতে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে মিলছে না জামিন। পুলিশের বরখাস্ত ডিআইজি মিজান, ঠিকাদার গোল্ডেন মনির, রিজেন্টের শাহেদ, ডা. সাবরীনা, ধর্ষণ মামলার আসামি তুফান সরকার, মেজর সিনহা হত্যা মামলার দুই আসামি জামিন চেয়ে ব্যর্থ হয়েছেন।

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর সিনহা হত্যা মামলায় দুই আসামি পুলিশের সোর্স মোহাম্মদ আজিজ ও রুবেল শর্মাকে জামিন দেননি হাইকোর্ট। দুই মামলায় পুলিশের বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজান জামিন চেয়েছেন একাধিক বার। রাজধানীর বাড্ডা বিতর্কিত ব্যবসায়ী মনির হোসেন ওরফে গোল্ডেন মনিরও একাধিক বেঞ্চে জামিন চেয়ে ব্যর্থ হয়েছেন। আলোচিত রিজেন্টের চেয়ারম্যান সাহেদের জামিন আবেদন একাধিক বার খারিজ করে দিয়েছে হাইকোর্টের দুইটি বেঞ্চ। দেশজুড়ে আলোচিত ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর কয়েক দফা জামিন আবেদনেও সাড়া দেননি উচ্চ আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের তৎপরতার কারণেই এসব মামলায় জামিন হচ্ছে না, প্রভাবশালী আসামিদের জামিন ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ উল্লেখ করে অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার মেহেদি হাসান চৌধুরী বলেন, এই ধরনের সন্ত্রাসীরা জেল থেকে বেড়িয়ে যেন বিচার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করতে না পারে তার জন্য আইনগতভাবে যত ব্যবস্থা নেয়া যায় তা নেয়া হবে। সিকিউর আবেদনের মাধ্যমে বিভিন্ন দাগী আসামিদের জামিন বাতিল করে তাদেরকে কোর্টে আত্মসমর্পণ করার ব্যবস্থা করছি।

অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মেহেদি হাসান চৌধুরী আরও বলেন, ন্যায় বিচারের স্বার্থেই জামিনের বিরোধিতা করছে রাষ্ট্রপক্ষ।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ বশির উল্লাহ বলেন, চোরাকারবারী, মাদক পাচারকারী এরকম কিছু ভয়ঙ্কর আসামি জেলে আছে। বর্তমানে করোনার দোহাই দিয়ে তারা জামিন পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এধরনের আসামিরা যাতে জামিন পেতে না পারে এই ব্যাপারে আমরা অত্যন্ত তৎপর।’

টাকার বিনিময়ে সুপ্রিমকোর্টের একটি জালিয়াতি চক্রের সহায়তায় তথ্য গোপন করে জামিন পেতে মরিয়া আসামিরা। বগুড়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ মামলার আসামি বহিষ্কৃত শ্রমিক লীগ নেতা তুফান সরকারের জামিন চাওয়ার ওপর ছয় মাসের নিধেষাজ্ঞা দিয়েছে হাইকোর্ট। এছাড়া, নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবি নেতা সালাহউদ্দিনসহ জেএমবি সদস্যরা, গাজীপুরে বাসে এক নারীকে গণ ধর্ষণের দুই আসামি, মোহাম্মদপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ধর্ষণ মামলার দুই আসামির জামিনেও সাড়া দেননি হাইকোর্ট।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে