রাজশাহীর স্কুল-কলেজের ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্লাসে

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১; সময়: ১০:২৬ am |

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ সময় পর খুলেছে স্কুল-কলেজ। আনন্দিত ও উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। তবে এখনো প্রায় ২০ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্লাসে ফেরে নি। বিষয়টিকে স্বাভাবিক বলছে- রাজশাহী মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।

অপরদিকে, কঠোর স্বাস্থ্যবিধিসহ ১৯ দফা নির্দেশনা মেনে স্কুল-কলেজ খোলা হলেও তার যথাযথ বাস্তবায়ন হচ্ছে না। অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের উদাসীনতায় ক্লাস রুমের বাইরে উপেক্ষিতই থাকছে স্বাস্থ্যবিধি।

সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) প্রথম দিনের মতোই সকাল থেকে নগরীতে স্কুল ইউনিফর্ম পরা শিক্ষার্থীদের পদচারণা ছিলো। পায়ে হেঁটে আবার কেউ গাড়িতে করেও ক্যাম্পাসে আসতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের। জটলা বাঁধতে দেখা গেছে ক্লাস রুমের বাইরে। ক্যাম্পাসের বাইরে মুখরোচক খাবারের পসরাও বসছে। যেখানে উপেক্ষিত থাকছে স্বাস্থ্যবিধি।

শিক্ষকরা বলছেন- কয়েকটি শিফটে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। কিন্তু অনেক শিক্ষার্থী আগে আসছেন। একারণে তাদেরকে বাইরে দাঁড়াতে হচ্ছে। সে সময় কিছুটা জটলা বাঁধছে। তবে জটলা যেন না বাঁধে যে জন্য নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।

তবে ক্লাস রুমে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে জোর দেয়া হয়েছে। রাজশাহী গভ. ল্যাবরেটরী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মুনতাসীর আহমেদ জানান, প্রথম দিনের মতো দ্বিতীয় দিনেও শিক্ষার্থীরা আনন্দঘন পরিবেশে ক্লাস করেছে। তাদের স্কুলে উপস্থিতির হার ৯০ শতাংশ।

তিনি আরও জানান, স্বাস্থ্যবিধি ও পরিচ্ছন্ন পরিবেশের প্রতি তারা জোর দিয়েছেন। তবে ক্যাম্পাসের বাইরে কিছুটা জটলা তৈরি হচ্ছে। একারণে ক্যাম্পাসের বাইরে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে অভিভাবকদেরও আরও সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

এদিকে, দ্বিতীয় দিনে অনেক শিক্ষার্থীকে ইউনিফর্ম পরে নগরীর দর্শনীয় স্থান, চায়ের দোকান ও ফাস্টফুডের দোকানে আড্ডা দিতে দেখা গেছে। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে তারা চুটিয়ে গল্প করছে। বাইরের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার খাচ্ছেন।

এবিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিক্ষার্থী জানান, ক্লাস ছুটি। তাই বন্ধুদের সঙ্গে পদ্মাপাড়ে এসেছে। আর এখানে সব বয়সী মানুষ আসে। তো তারা আসলে দোষ কোথায়? আর স্বাস্থ্যবিধি বলতে তারা মাস্ক পরেছে। তবে কিছু সময়ের জন্য হয়তো গরমের কারণে খুলে রেখেছে।

রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মকবুল হোসেন জানান, দ্বিতীয় দিনেও শিক্ষার্থীরা সুন্দর পরিবেশে ক্লাস করেছে। ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থী ক্লাসে আসছে। বাকি ২০ শতাংশ এটা অন্যান্য স্বাভাবিক সময়েও এমন থাকে। সুতরাং এটা অস্বাভাবিক কিছু না। আর ক্লাসে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া আছে। কোনো প্রতিষ্ঠান সেটা না মানলে তাদের ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি আরও জানান, অনেক প্রতিষ্ঠানের বাইরে কিছুটা জটলা বাঁধছে। আবার কিছু শিক্ষার্থী বিনোদন স্পটগুলোতে অবসর সময় কাটাচ্ছে। বাইরের অস্বাস্থ্যকর খাবার খাচ্ছে। এখানে তাদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে বলা হচ্ছে। তবে অভিভাবকদের আরও সচেতন হতে হবে।

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে