শিক্ষার্থীদের বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত: জুলাই ১৫, ২০২১; সময়: ৩:৩৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : পরীক্ষা দিতে এসে আটকে পড়া শিক্ষার্থীদের নিজ জেলায় পৌঁছে দিতে শুরু করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার সকাল আটটায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বাস ছেড়ে যায় রংপুরের উদ্দেশে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন দপ্তরের প্রশাসক মোকছেদুল হক বলেন, শিক্ষার্থীদের রেজিস্ট্রেশনের ভিত্তিতে নওগাঁ, বগুড়া ও রংপুরের উদ্দেশে ৫৫০ জনের মতো শিক্ষার্থীকে পাঠানো হয়েছে। মোট ১১টি বাসে করে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে তাঁদের বাসে ওঠানো হয়। বাসের এক সিটের আসনে একজন আর তিন সিটের আসনে দুজন বসানো হয়েছে। সকালে শিক্ষার্থীদের আইডি কার্ড চেক করে সই নিয়ে বাসে ওঠানো হয়। শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ জেলায় নামিয়ে দেওয়া হবে। সে সময়ও একটি সই নেওয়া হবে।

মোকছেদুল হক আরও বলেন, শুক্রবার সকাল সাতটায় ঢাকার উদ্দেশে ক্যাম্পাস ছাড়বে বাস। এটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ছেড়ে নাটোরের বনপাড়া-এলেঙ্গা হয়ে ঢাকায় যাবে। পরের দিন শনিবার সকাল সাতটায় খুলনার উদ্দেশে ক্যাম্পাস থেকে বাস ছাড়বে। এসব বাস কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ-কালিগঞ্জ-যশোর-নওয়াপাড়া হয়ে খুলনায় পৌঁছাবে।

এর আগে গত ৩ জুন এক ভার্চ্যুয়াল সভায় বিভিন্ন বর্ষের ২০১৯ সালের আটকে থাকা পরীক্ষাগুলো ২০ জুন এবং ২০২০ সালের পরীক্ষাগুলো ৪ জুলাই থেকে শুরু করতে প্রতিটি বিভাগকে নির্দেশনা দেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ খবর পেয়ে কয়েক দিনের মধ্যে শিক্ষার্থীরা রাজশাহীতে চলে আসেন। আবাসিক হল বন্ধ থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা মেস ভাড়া নিয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন।

কিন্তু রাজশাহীতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে ১১ জুলাই রাজশাহী সিটি করপোরেশনকে লকডাউনের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নেয় রাজশাহী জেলা প্রশাসন। এরপর ১ জুলাই থেকে সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। এর মধ্যেই সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো পরীক্ষা স্থগিত করে দেয়।

এতে মেসে থাকা শিক্ষার্থীদের বাড়ি ফেরা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। এরপর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কিছু শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসযোগে তাঁদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার দাবি তোলেন। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাঁদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করে।

কিন্তু চলমান বিধিনিষেধ শিথিলের খবরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দেয়, তারা বাস দেবে না। পরে ১৩ জুলাই শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পূর্বের সিদ্ধান্তে ফিরে আসে।

  • 64
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে