নিরাপত্তা চেয়ে রাবির দায়িত্বপ্রাপ্ত ভিসির চিঠি

প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২১; সময়: ১০:২৭ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশের সহযোগিতার জন্য আবেদন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বৃহস্পতিবার আড়াইটার দিকে সাংবাদিকদের কাছে বিফ্রিংয়ে এ কথা জানান রুটিন দায়িত্ব পালনকারী উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহা। বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের মাধ্যমে পুলিশ কমিশনারের কাছে লিখিত আবেদন পাঠানো হয় বলে জানান তিনি।

অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, তাঁর সহকর্মীরা নিরাপত্তাহীনতা ভুগছেন। এ রকম অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে ও লিখিত আবেদনও করা হয়েছে।

এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাইন্যান্স কমিটি ও সিন্ডিকেট সভা ঠেকাতে অনড় অবস্থানে রয়েছে সাবেক উপাচার্যের ‘অবৈধ নিয়োগে’ চাকরিপ্রাপ্তদের একটি অংশ। বৃহস্পতিবার বেলা দুইটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের প্রধান ফটকের সামনে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীদের একাংশের নেতৃত্বে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আতিকুর রহমান।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলী তাঁদের কাছে গিয়ে আলোচনায় বসার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। এ কারণে বুধবার আটটার দিকে তাঁরা অবস্থান কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন। উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহাও তাঁকে ফোন করে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে আলোচনায় বসার জন্য আসতে বলেন। কিন্তু বেলা ১টার পর প্রক্টরের মাধ্যমে তাঁরা জানতে পারেন, তিনি আলোচনায় বসবেন না। উপাচার্য তাঁদের যোগদানের বিপরীতে কাজ করছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। এ জন্য তাঁরা ফাইন্যান্স কমিটি ও সিন্ডিকেট সভা হতে দেবেন না।

এ ব্যাপারে আনন্দ কুমার সাহা বলেন, বুধবার তিনি প্রক্টরের মাধ্যমে জানতে পারেন তাঁরা আলোচনায় বসতে চান। এরপর বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তাঁর দপ্তরে আলোচনার জন্য আহ্বানও জানিয়েছিলেন তিনি। তবে তাঁরা সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ করে আবার আন্দোলন করবেন, এমনটা জানার পর প্রক্টরের মাধ্যমে তাঁদের বলে দেন, নতুন করে আর কিছু বলার নেই। এই নিয়োগকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় অবৈধ ঘোষণা করেছে। এর সঙ্গে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আর সরকার জড়িত। তাঁর একার পক্ষে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, এর আগে আলোচনায় বসার নাম করে ‘অবৈধ নিয়োগে’ চাকরিপ্রাপ্তরা তাঁকে, কোষাধ্যক্ষ ও প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যদের অবরুদ্ধ করে রেখেছিলেন।

এদিকে ‘অবৈধ নিয়োগে’ চাকরিপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা আগামী রোববার থেকে প্রশাসনিক ভবনের সামনে সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত টানা অবস্থান কর্মসূচি পালন করবেন। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্র ও শনিবার যদি কোনো ধরনের সভা করার পাঁয়তারা প্রশাসন করে, তাঁরা সভাগুলো ঠেকানোর জন্য প্রস্তুত রয়েছেন বলে জানান তাঁরা।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ নিষেধাজ্ঞাকে তোয়াক্কা না করে গত ৬ মে তৎকালীন উপাচার্য এম আবদুস সোবহান কর্মদিবসের শেষ দিনে ১৩৮ জনকে নিয়োগপত্র দিয়ে পুলিশি পাহারায় ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন। সেই দিন বিকেলেই এই নিয়োগকে অবৈধ ঘোষণা করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে।

তদন্ত কমিটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে তদন্ত করে ২৩ মে প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে। অবৈধ নিয়োগে তদন্ত কমিটি বিদায়ী উপাচার্যসহ বেশ কয়েকজনের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেয়েছে। আবদুস সোবহানের দেশ ত্যাগেও নিষেধাজ্ঞার সুপারিশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। তবে এখনো শিক্ষা মন্ত্রণালয় দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

এর মধ্যেই নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা যোগদানের জন্য ক্যাম্পাসে আন্দোলন করছেন। সবশেষ গত শনিবার সকাল থেকে ক্যাম্পাসে পদে যোগদানের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন তাঁরা। এর ফলে শনিবার ফাইন্যান্স কমিটির সভা স্থগিত হয়ে যায়। তাঁরা সে সময় ঘোষণা দিয়েছিলেন, সিন্ডিকেট সভাও করতে দেবেন না।

কিন্তু গত রোববার রাতে স্থানীয় আওয়ামী লীগের হস্তক্ষেপে তাঁরা রুটিন উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহার বাসভবনসহ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ভবনের তালা খুলে দেন। পরদিন সোমবার দুপুরে স্থানীয় সাংসদ আয়েন উদ্দিন ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতা এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে প্রায় তিন ঘণ্টা আলোচনা করেন। সভা শেষে বের হয়ে চাকরিপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা আন্দোলন স্থগিত করেন। তাঁরা ক্যাম্পাসে প্রশাসনিক কার্যক্রমে বাধা দেবেন না বলেও জানিয়েছিলেন।

তবে সিন্ডিকেট সভায় তাঁদের নিয়োগ চূড়ান্তভাবে বাতিল করা হবে—এমন কিছু তাঁরা জানতে পেরেছেন বলে অভিযোগ তোলেন। এ কারণে নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের একটি অংশ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় উপাচার্যের বাস ভবনের সামনে অবস্থান নেয়। সেদিন সাড়ে ৭টায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া সিন্ডিকেট সভা রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্থগিত করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তবুও নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিরা যোগদানের দাবিতে রাত ও দিনভর অবস্থান করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে