ইউজিসি’র বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ রাবি উপাচার্যের

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০; সময়: ৮:২৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী : ইউজিসি’র বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ রাবি উপাচার্যের। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহানের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষকদের একাংশ যে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছিলেন, সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে ইউজিসির ডাকা গণশুনানিতে পক্ষপাতিত্ব হবে বলে অভিযোগ তুলেছেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য।

সম্প্রতি ইউজিসি চেয়ারম্যানের কাছে লেখা চিঠিতে এই অভিযোগ তোলেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহান। সেই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে যে গণশুনানি ডাকা হয়েছে সেই গণশুনানিকে বেআইনি, আদালত অবমাননা এবং রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা খর্ব করা হয়েছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

চিঠিতে উপাচার্য লেখেন, উপাচার্যের বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ তদন্তের জন্য তদন্ত কমিটি গঠনের কোন ক্ষমতা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে দেওয়া হয় নাই। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন উপাচার্যের বিরুদ্ধে নামে-বেনামে উত্থাপিত অভিযোগ তদন্তে আপনার নির্দেশে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠিত হয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (বিমক)-এর একজন সিনিয়র সহকারী পরিচালক এবং উপাচার্যের সমমর্যাদা সম্পন্ন বিমক-এর দুইজন সম্মানিত সদস্য সমন্বয়ে বর্ণিত তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে যা আইনসিদ্ধ নয়।

আইন অনুযায়ী তদন্ত কমিটির সদস্যবৃন্দের মর্যাদা উপাচার্যের মর্যাদার এক ধাপ উপরে হওয়া বাঞ্ছনীয়। মহামান্য রাষ্ট্রপতি তথা আচার্য কর্তৃক উপাচার্য নিয়োগপ্রাপ্ত হন। উপাচার্যের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত তাই শুধুমাত্র নিয়োগকর্তা দ্বারা সম্পন্ন করা আইনসিদ্ধ। কিন্তু আইন বহির্ভূতভাবে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন কর্তৃক একজন সিনিয়র সহকারী পরিচালক ও উপাচার্যের সমমর্যাদা সম্পন্ন দুইজন সদস্য সমন্বয়ে গঠিত তদন্ত কমিটি কর্তৃক তদন্তকার্য পরিচালনা শুধু বেআইনিই নয় বরং এর মাধ্যমে মহামান্য রাষ্ট্রপতির ক্ষমতাকেও খর্ব করা হয়েছে।

চিঠিতে তিনি আরও বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব মিথ্যা অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ও আপীল বিভাগে বিচারাধীন আছে। একই বিষয় নিয়ে তাই তদন্ত বা প্রশ্ন উত্থাপন করা আদালত অবমাননার সামিলও বটে।

উপাচার্য তার ওই চিঠিতে তদন্ত কমিটির প্রধানের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগও উত্থাপন করেছেন। উপাচার্যের দাবি, তদন্তের আগে আমাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক গণমাধ্যমে বিষয়টি যেভাবে উপস্থাপন করেছেন, তা থেকে প্রতীয়মান হয় যে, তদন্তের আগেই মিডিয়া ট্রায়াল সম্পন্ন করা হয়েছে। যারা একজন উপাচার্যকে নয় বরং বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষককে অপদস্থ করা হয়েছে।

  • 27
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও খবর

  • ১২৬৬ কোটি টাকার পাঁচ প্রকল্প অনুমোদন
  • অতিরিক্ত রাস্তা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  • রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমির ষড়যন্ত্রের শেষ কোথায়?
  • স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে জমি বেঁচে হাতি কিনলেন কৃষক
  • স্বাস্থ্যের কোটিপতির তালিকায় রাজশাহী হাসপাতালের হিসাবরক্ষক
  • পাবনায় চিকনাই নদীর উপর স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁশের সেতু নির্মাণ
  • দেশে করোনায় মৃত্যু ছাড়াল পাঁচ হাজার
  • রাজশাহীর বাজারে ফের পেঁয়াজের দাম বাড়তি
  • দেশে ফের আসছে লকডাউন?
  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে নতুন যে তথ্য দিলেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব
  • রাজশাহীসহ দেশের ২০ অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস
  • ভিপি নুরের বিরুদ্ধে অপহরণ-ধর্ষণ ও ডিজিটাল আইনে আরেক মামলা
  • মান্দায় উপ-নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন পেলেন এমদাদুল
  • রাজশাহী বিভাগে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি
  • চীন-রাশিয়া থেকে অস্ত্র কেনার ঘোষণা ইরানের
  • উপরে