৩ বছরেও সম্পন্ন হয়নি রাবির চারুকলা বিভাগে ২০১৫ সালের মাস্টার্স

প্রকাশিত: মে ৮, ২০১৯; সময়: ১:৪১ pm |
নিজস্ব প্রতিবদেক, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের ২০১৫ সালের মাস্টার্সের ক্লাস শুরু হয় ২০১৮ সালে। বছরের শেষের দিকে তাদের চূড়ান্ত পরীক্ষাও অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ হয়নি।
সেশন জটের কারণে চার বছরের স্নাতক (সম্মান) কোর্স সম্পন্ন করতে তাদের লেগেছে ৬ বছর। মাস্টার্স একবছরের কোর্স হলেও শুরু করতেই পেরিয়ে গেছে ৩ বছর। ২০১৫ সালের মাস্টার্স শুরু হয় ২০১৮ সালে। শেষে পরীক্ষায় বসলেও ফল পাচ্ছেন না শিক্ষার্থীরা। এতে বিভিন্ন চাকুরিতে আবেদন করতে না পারায় এখন হতাশ শিক্ষার্থীরা। এজন্য শিক্ষকদের উদাসীনতাকেই দায়ী করছেন শিক্ষার্থীরা।
চারুকলা অনুষদ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে চারুকলা বিভাগ ভেঙে অনুষদ গঠন করা হয়। অনুষদের অধীনে গ্রাফিক ডিজাইন, কারুশিল্প ও শিল্পকলার ইতিহাস বিভাগ, মৃৎশিল্প ও ভাষ্কর্য বিভাগ এবং চিত্রকলা, প্রাচ্যকলা ও ছাপচিত্র বিভাগ নামে স্বতন্ত্র তিনটি বিভাগ হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। এর আগে বিভাগ তিনটি একত্রে চারুকলা বিভাগ নামে পরিচিত ছিল।
২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে চারুকলা বিভাগের অধীনে যারা ভর্তি হয়েছিলেন তারা এখনও মাস্টার্সের ফলাফল নিয়ে বের হতে পারেননি। অথচ বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের ২০১৪ সালে স্নাতক সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও তা হয়েছে ২০১৬ সালে। হিসাব মতে ২০১৫ সালে তাদের মাস্টার্স শুরু হওয়ার কথা ছিল। দীর্ঘ সময়ের সেশন জটে পড়ে তারা ২০১৮ সালে মাস্টার্সের ক্লাস শুরু করেন। ওই বছরের সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে তাদের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হয়। ৪৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেন।
নন থিসিস গ্রুপের তিনটি লিখিত (থিসিস গ্রুপের একটি) ও তিনটি ব্যবহারিক কোর্সের পরীক্ষা শেষ হয় ১১ই অক্টোবর। থিসিস গ্রুপের ২৭ জন শিক্ষার্থীর মৌখিক পরীক্ষা শেষ হয় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে।
ভুক্তভোগী একাধিক শিক্ষার্থী জানান, দ্রুত ফল প্রকাশের জন্য একাধিকবার তারা শিক্ষকদের কাছে গিয়েছেন। তবে শুধু আশ্বাসই পেয়েছেন। কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, ‘সম্প্রতি একটি চাকরির সার্কুলার হয়েছে। সেখানে মাস্টার্সের রেজাল্ট চাওয়া হয়েছে। তাতে আবেদনের শেষ তারিখ ২০ মে। এর মধ্যে ফলাফল প্রকাশ হলে আমাদের ওই সার্কুলারে আবেদনের সুযোগ তৈরি হত।’
ওই বর্ষের পরীক্ষা কমিটির সভাপতি হিসেবে আছেন মৃৎশিল্প বিভাগের সভাপতি মোস্তফা শরীফ আনোয়ার। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যেই টেবুলেশন কমিটি করে দিয়েছি। কিন্তু একটা কোর্সের নম্বর এখনও জমা পাইনি। তাই ফল প্রকাশে বিলম্ব হচ্ছে।’ কোন কোর্সের নম্বর জমা হয়নি জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।
চারুকলা অনুষদের ডিন সিদ্ধার্থ শঙ্কর তালুকদার বলেন, ‘ফলাফল তৈরির কাজ চলছে। যত শীঘ্রই সম্ভব ফলাফল প্রকাশ করা হবে।’
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে