মনিরা মিঠির একগুচ্ছ কবিতা

প্রকাশিত: জুলাই ৯, ২০২০; সময়: ১১:২১ pm |

 

যাই

পায়ে পায়ে হেঁটে চলি
দীর্ঘ এক করিডোর
সেখানে সোনালী আলোর আল্পনা
স্বাগত জানায় দুলে দুলে
বাতাবী নেবু ফুলের মত বিস্তৃত সৌরভ
খেলা করে বয়ে চলা বাতাসে
প্রাচীন কোনো সঙ্গীতের
কড়ি কোমল স্বর
ছড়িয়ে পড়ে মগজের কোষে কোষে
অঞ্জলি ভরা রূপকথার মত
ভালোবাসা বয়ে বয়ে
সুতীব্র ঘুমের ঘোরে
পৌঁছে যাই মৃত্যুর দোরগোড়ায়

ওপাশে আর কিছু নেই।

 

ডাকবাক্স

রঙিন খামে মোড়া চিঠিগুলি
পৌঁছে যায় কাছে থেকে
কোন সুদূর ঠিকানায়
খোলা চিঠিও পেয়ে যায়
ঠিক ঠিক প্রাপক
মাশুলহীন কোনো পত্রও
থাকে না পড়ে

সে শুধু এক স্টেশন
যাকে ছুঁয়ে যায়
অজস্র আবেগ অজস্র কথামালা
বুকে জমে ওঠা সকাল-সন্ধ্যা
কেজো অকেজো সকল উধাও
সময়ের নিয়মে
বন্ধঘরে অন্ধকারে জমে
চাপ চাপ শূন্যতার ভার

ডাকবাক্স হয়ে পথের ধারে নিশ্চুপ…

 

বুদবুদ

একফোঁটা বুদবুদ
রক্তের ভেতর খেলবে শুনে
তুমি শিকারী বাঘের তাড়া খাওয়া
হরিণের মত ভীত হলে
একফোঁটা বুদবুদ
একটা ঝড়ো হাওয়া হয়ে
ঠেলে দিলো তোমাকে
নিশ্চিত নিরাপত্তায়
অন্য এক উষ্ণ আলিঙ্গনে
একফোঁটা বুদবুদ
তোমাকে নিয়ে গেলো
আলোকবর্ষ দূরের কোনো নক্ষত্রে
শীতের কুয়াশা জমা
সেই বুদবুদ পৌঁছে যায়
শরীরের নিরক্ষরেখায়
আমাকে বসিয়ে রাখে
স্থির সময়ের ক্ষেত্রে…

 

ওড়ার ডানা

একে একে ঝরে যায় পাপড়িগুলো
ছড়িয়ে যায় যত্রতত্র
চুঁইয়ে পড়ে রঙ
গড়িয়ে যায় নিম্নাঞ্চলে
নরোম পালকের মত বাতাস
মিশে যায় বাতাসে বাতাসে
যেখানে ছিলো যত শেকড়
মাটি আলগা হতে হতে
মাটি আলগা হতে হতে….
যেনো জলের শয্যা

কুসুম কুসুম ওমে
বেড়ে ওঠে এক ডানা
ঢেকে দিতে থাকে সকল ক্ষত
নক্ষত্রমণ্ডলীর ইশারায়
আলোর পথে দূরযাত্রা…

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে