কাউন্সিলরের গুদাম থেকে ৬ হাজার লিটার সয়াবিন তেল জব্দ

প্রকাশিত: মে ১২, ২০২২; সময়: ২:১৮ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : বগুড়ার কাহালু পৌরসভার একজন কাউন্সিলের দোকান ও গুদামে ছয় হাজার লিটারের বেশি বোতলজাত সয়াবিন তেল মজুত থাকায় তাঁকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার দুপুরে কাহালু বাজার এলাকায় এ অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদপ্তর। তেল মজুতকারী আরিফুল ইসলাম কাহালু পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড থেকে নির্বাচিত কাউন্সিলর।

এ ঘটনায় তাঁর গুদাম সিলগালা করে দেওয়া হয়। এ ছাড়া জব্দ করা তেল বোতলের গায়ে লেখা নির্ধারিত দামে ভোক্তাদের কাছে বিক্রির জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের বগুড়ার সহকারী পরিচালক ইফতেখারুল আলম রিজভী এ অভিযান পরিচালনা করেন।

তিনি বলেন, কাহালু বাজারের আরিফ ট্রেডার্স নামের প্রতিষ্ঠানটির মালিক পৌর কাউন্সিলর আরিফুল ইসলাম একটি ভোজ্যতেলের ব্র্যান্ডের কাহালু উপজেলার ডিলার। অতিরিক্ত মুনাফার আশায় তিনি পুরোনো দরের বিপুল পরিমাণ বোতলজাত সয়াবিন তেল অবৈধভাবে মজুত করেছেন।

অভিযানে গুদাম ও দোকান থেকে এক, দুই, তিন ও পাঁচ লিটারের ছয় হাজার লিটারের বেশি বোতলভর্তি ভোজ্যতেল আটক করা হয়। এসব বোতলের গায়ে খুচরা মূল্য ১৬০ টাকা লেখা ছিল। পরে ডিলার আরিফুল ইসলামকে ভোজ্যতেল মজুতদারির দায়ে এক লাখ টাকা জরিমানা এবং আটক করা সয়াবিন তেল পুলিশের উপস্থিতিতে খোলাবাজারে ১৬০ টাকা লিটার দরে ভোক্তাদের কাছে বিক্রির নির্দেশ দেওয়া হয়। এ ছাড়া তাঁর গুদাম সিলগালা করা হয়।

কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমবার হোসেন বলেন, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জব্দ করা ভোজ্যতেল বোতলের গায়ে লেখা দরে বিক্রির নির্দেশ দিয়ে চলে গেছে। ওই ব্যবসায়ী আগের দামে বিক্রি করেছেন কি না, তা পুলিশের জানা নেই।

কাহালু পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘পাইকারি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান আমার। মঙ্গলবারই কোম্পানি থেকে বোতলজাত তেল সরবরাহ পেয়েছিলাম।

৬ হাজার নয়, সর্বোচ্চ ৪০০ লিটার বোতলজাত তেল ছিল, খুচরা দরে তা বিক্রি করেছি।’

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে