জয়পুরহাটের ডিসির অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত: মে ১১, ২০২২; সময়: ৯:১৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, জয়পুরহাট : জয়পুরহাট-১ ( জয়পুরহাট সদর ও পাঁচবিবি) আসনের সাংসদ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সামছুল আলম দুদুকে অবমাননার অভিযোগ তুলে জয়পুরহাট জেলার প্রশাসক শরীফুল ইসলামের অপসারণের দাবিতে আওয়ামী লীগের তৃণমুলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীর ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল করা হয়েছে।

বুধবার সকাল সাড়ে এগারোটায় জয়পুরহাট শহরের শহীদ ডাঃ আবুল কাশেম ময়দান থেকে মিছিলটি বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। এই বিক্ষোভ মিছিলে জেলা আওয়ামী লীগের পদধারী কাউকে দেখা যায়নি। তবে মিছিলে অংশ নেওয়া সবাই আওয়ামী লীগ- অঙ্গসংগঠনেরর সঙ্গে জড়িত। তাঁরা সবাই জয়পুরহাট-১ আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট সামছুল আলম দুদুর অনুসারী।

গত মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সরকারি দুটি প্রোগ্রামে সাংসদ সামছুল আলমকে দাওয়াত না দেওয়ার জের ধরে এই বিক্ষোভ মিছিল করা হয়। বিক্ষাভকারীরা ডিসি ও হাসপাতালের তত্বাবধায়ক বিরুদ্ধে আপত্তিকর কথা লেখা সম্বলিত প্লেকার্ড হাতে নিয়ে স্লোগান দিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদশী, স্থানীয় সুত্রে ও সাংসদ সামছুল আলম সমর্থিত দলীয় নেতা-কর্মীরা জানান, , জয়পুরহাট-১ আসনের সাংসদ সামছুল আলম দুদু। তিনি জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি। গত মঙ্গলবার জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে ডায়ালাইসিস সেন্টারের উদ্বোধন করা হয়। একই দিন বিকেলে সাংসদের নির্বাচনী এলাকা পাঁচিবিবি পৌরসভায় মুক্তিযুদ্ধ জাদ্ঘুর ও সংরক্ষণশালার উদ্বোধন করা হয়।

এই দুটি সরকারি অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ সামছুল আলম দুদু উপস্থিত ছিলেন না। তবে সাংসদ সামছুল আলম দুদু জানিয়েছেন সরকারি দুটি অনুষ্ঠানে তাঁকে দাওয়ায়ই দেওয়া হয়নি। একারণে তিনি তাঁর নির্বাচনী এলাকার সরকারি দুটি অনুষ্ঠানে যেতে পারেননি।

সাংসদ সামছুল আলম সমর্থিত দলটির নেতারা জানান, ডিসি শরীফুল ইসলাম রাজনীতি করছেন। তিনি স্থানীয় সাংসদ সামছুল আলম দুদুর সঙ্গে দুরত্ব সৃষ্টি করেছেন। সাংসদ সরকারি অনুষ্ঠানে থাকলে ডিসি সাহেব সেখানে যান না। মঙ্গলবার সরকারি দুটি অনুষ্ঠানে ডিসি সাহেবে ইন্ধনে স্থানীয় সাংসদকে দাওয়াত করা হয়নি। এই ঘটনার মাধ্যমে স্থানীয় সাংসদ সামছুল আলম দুদু অবজ্ঞা ও অবমাননা করা হয়েছে। একারণে জয়পুরহাটের ডিসি শরীফুল ইসলাম ও জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ সরদার রাশেদ মোবারকের অপসারণ চান তাঁরা। তবে জেলা প্রশাসক শরীফুল ইসলাম সাংসদকে দাওয়া না দেওয়ার পিছনে তাঁর ঈন্ধনের কথা অস্বীকার করেছেন।

সাংসদ সামছুল আলম বলেন, জয়পুরহাট সদর ও পাঁচবিবি উপজেলা আমার নির্বাচনী এলাকা। গত মঙ্গলবার হাসপাতালের ডায়ালাইসিস সেন্টার ও পাঁচবিবি পৌরসভায় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ও সংরক্ষণশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আমাকে দাওয়াত করা হয়নি। জয়পুরহাট-২ আসনের সাংসদ ও হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন ডায়ালাইসিস সেন্টারের উদ্বোধন করেছেন। এতে কে উদ্বোধন করল সেটাতে আমার আপত্তি নেই।

আমি তো দাওয়াত পেতে পারতাম। জয়পুরহাটে দুটি সংসদীয় আসন। জয়পুরহাট সদর ও পাঁচবিবি নিয়ে জয়পুরহাট-১ আসন আর আক্কেলপুর কালাই-ক্ষেতলাল উপজেলা নিয়ে জয়পুরহাট-২ আসন। ডিসি শরীফুল ইসলাম মনে করেন জয়পুরহাটে একটি সংসদীয় আসন আছে। সেই আসনটি জয়পুরহাট-২ আসন। তিনি অভিযোগ করেন, আমি আনুষ্ঠানে থাকলে ডিসি সেই অনুষ্ঠানে যান না। আবার জেলা প্রশাসনের অনুষ্ঠানে আমাকে দাওয়াত করা হয় না। দলীয় নেতা-কমীরা আমাকে অবমাননার বিষয়টি মেনে নেননি। একারণে ডিসি ও তত্ত্বাবধায়কের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছেন।

জয়পুরহাটের জেলা প্রশাসক মোঃ শরীফুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসনেরর পক্ষ থেকে হাসপাতাল ও পাঁচবিবি পৌরসভার অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়নি। হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ও পাঁচিবির পৌরসভার প্রশাসক অনুষ্ঠানের আয়োজক ছিলেন। সাংসদ মহোদয় আমাকে ভুল বুঝেছেন। জেলা প্রশাসনের সব অনুষ্ঠানে সাংসদ মহোদয়কে দাওয়াত করা হয়। আমি সাংসদ মহোদয়ের অনুষ্ঠানে যাই না এটা সঠিক নয়। আমি এখানে চাকরি করতে এসেছি।

জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ রাশেদ মোবারক বলেন, আমি নিজে মুঠোফোনে সাংসদ সামছুল আলম মহোদয়কে দাওয়াত করেছি। তিনি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসেননি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে