ঐতিহাসিক বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরে দর্শনার্থীদের ভিড়

প্রকাশিত: মে ৫, ২০২২; সময়: ১:২১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, বদলগাছী : এ বছর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় অবস্থিত ঐতিহাসিক বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরে র্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড়ে মুখরিত হয়ে উঠেছে। কাস্টডিয়ান বলছেন বিগত বছরের রেকর্ড ভেংগেছে এ বছর।

সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, ঐতিহাসিক পাহাড়পুরের রয়েছে সৌন্দর্য বর্ধনশীল ও আকর্ষনীয় মূল প্রবেশদ্বার। প্রবেশ দ্বারের দক্ষিন পার্শ্বের কক্ষে রয়েছে প্রত্ন সামগ্রী ও বই। উত্তর পার্শ্বে কক্ষে রয়েছে টিকিট কাউন্টার। তাঁর পার্শ্বে রয়েছে মহিলা টয়লেট ও পুরুষ টয়লেট। আরো আছে ১টি মসজিদ। রয়েছে অফিসারদের জন্য কোয়ার্টার, ব্যাটিলিয়ানদের জন্য আনসার কোয়ার্টার, স্টাফ কোয়ার্টার। দর্শনার্থীদের বিশ্রামের জন্য রয়েছে ১০টি ছাউনী সেই ছাউনি গুলো সেজেছে বিভিন্ন সাজে। আর এই ছাউনী গুলিতে ক্লান্ত দর্শনার্থীরা বসে বিশ্রাম নিচ্ছেন। আর দর্শনার্থীর ছাউনিগুলোর পার্শ্বেই রয়েছে পুরাতন আদলে নির্মিত ১টি পুকুর।

এছাড়া পাথওয়ের মাঝে রয়েছে বসার স্থান। আর এ পাথওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে মনোরোম পরিবেশে । রয়েছে গাড়ী পার্কিং এর জায়গা। এর মধ্যে পিকনিক কর্নার থেকে সরাসরি বৌদ্ধ মন্দির প্রব্রেশ পথে রয়েছে ১টি ব্রিজ। বৌদ্ধ মন্দিরের প্রধান ফটক সহ ভিতরে রয়েছে মোট ৩টি ব্রিজ। আর বৌদ্ধ মন্দিরের চুড়ায় উঠার জন্য আছে কাঠের সিঁড়ি। আর এসব দৃশ্য দেখে যেন মন ভরেযাবে যেকোন কারো।

জানা যায়, এবছর ঈদুল ফিতরের ছুটির দিনে বিভিন্ন বিভাগ, জেলা, উপজেলা ও রাজধানী ঢাকা থেকে অসংখ্য দর্শনার্থী আনন্দ করতে এই ঐতিহাসিক বৌদ্ধবিহার পাহাড়পুরে ছুটে এসেছেন।

গত মঙ্গলবার, বুধবার সরজমিনে গিয়ে দেখে ও শুনে জানা যায়, ঈদের দিন দুপুর থেকে এই পাহাড়পুরে দর্শনার্থীদের আগমন বাড়তে থাকে। আর দর্শনার্থীদের আগমন উপলক্ষে বৌদ্ধবিহার পাহাড়পুর সংলগ্ন হোটেল, রেস্তোরাঁ, কসমেটিস ও ঝিনুকের দোকানগুলো দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে বিভিন্ন বর্ণিল সাজে সাজিয়েছেন দোকানিরা।

দোকানীরা জানান, এই রোজার ঈদের পাঁচ থেকে সাত দিন ব্যপক দর্শনার্থীর আগমন ঘটে এই বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরে। আর প্রতিদিন প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার দর্শনার্থী এই পাহাড়পুর পরিদর্শন করতে আসে।
বিভিন্ন জায়গার ভ্রমণ প্রিয়াসি দর্শনার্থীদের সাথে কথা বললে তারা বলেন, ঐতিহাসিক বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরের নাম আমরা অনেক শুনেছি ও জেনেছি কিন্তু সময়ের অভাবে এটি বাস্তবে দেখার সময় হয়নি। আর এ বছর ঈদের ছুটিতে পরিবার নিয়ে এসে বাস্তবে এতো সুন্দর দৃশ্য দেখে খুব ভাল লাগছে।

দর্শনার্থী পায়েল, যুথি, খুশি, রফিকুল, সুমুন ও রতন সহ অনেকেই বলেন আমরা এখানে এর আগে বহুবার এসেছি । কিন্তু এবার এখানে এসে মনে হচ্ছে নতুন এক বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরকে দেখছি ও পুরো পাহাড়পুরটি পরিদর্শন করে আমরা খুবই আনন্দ পেয়েছি ।

পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার অফিস সূত্রে জানা যায়, এই রোজার ঈদে প্রথম দিন এই পাহাড়পুরে প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার দর্শনার্থীর সমাগম ঘটেছে। এবং পরের দিন বুধবারে ২৫ থেকে ৩০ হাজার দর্শনার্থীর আগমণ ঘটে এখানে।

এ বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত কাস্টডিয়ান ফজলুল করিম আরজু বলেন, এই ঈদুল ফিতরে বিগত বছরগুলোর রেকর্ড ভেংগেছে দর্শনার্থীরা এবছর এই বৌদ্ধ বিহার পাহাড়পুরে ব্যাপক দর্শনার্থীর সমাগম ঘটছে।

তিনি আরো বলেন, দর্শনার্থীদের কথা বিবেচনা করে পাহাড়পুরের ২ নং প্রবেশ দ্বারও খুলে দেওয়া হয়েছে। দর্শনার্থীদের বিশ্রামের জন্য রয়েছে বেশ কয়েকটি ছাউনি ও বেঞ্চ আর এতে করে এই গরমে দর্শনার্থীরা খুব বেশি ক্লান্ত হচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে