ঈদে নানা বাড়ি বেড়াতে যাবার পথে দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো শিশুর

প্রকাশিত: মে ৪, ২০২২; সময়: ৩:৫১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুজানগর : ঈদে সুজানগরে নানা বাড়ি বেড়াতে যাবার পথে মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে আবু তালহা তেহমী (০৮) নামে এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের পরের দিন বুধবার (৪ মে) দুপুর ১২ টার দিকে নাজিরগঞ্জ-সুজানগর সড়কের সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের কুড়িপাড়া নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আবু তালহা তেহমী রাইপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও নাজিরগঞ্জ ইউনিয়নের হাটমালিফা গ্রামের হেলাল উদ্দিনের সন্তান। সে স্থানীয় মালিফা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী ছিল।

এ ঘটনায় তেহেমীর সঙ্গে থাকা তার আপন বড় ভাই মালিফা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী মো.তোহা ও মোটরসাইকেল চালক চাচাতো ভাই এইচএসসি পরীক্ষার্থী মো. মামুনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে পাবনা সদর হাসপাতাল এবং অবস্থার অবনতি হলে পরে তাদের দুইজনকে ঢাকা নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন নিহত তেহমীর মামা হাবিবুর রহমান প্রিন্স।

নিহতের পারিবারিক ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, নিজ বাড়ি হাট মালিফা থেকে চাচাত ভাই মামুনের মোটরসাইকেলে আপন দুই ভাই তেহেমী ও তোহা নানা বাড়ি সুজানগর পৌরসভার ভবানীপুর (কাচারীপাড়া) যাবার পথে কুড়িপাড়া নামক স্থানে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে মোটরসাইকেলে থাকা ৩ জনই গুরুতর আহত হয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে সুজানগর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তেহমীকে মৃত ঘোষণা করে।

সুজানগর থানার ওসি আব্দুল হাননান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনার পরপরই মাইক্রোবাসটি নিয়ে চালক পালিয়ে গেছে। তবে গাড়িটি জব্দ ও চালককে আটক করতে পুলিশ অভিযান শুরু করেছে।

এদিকে ঘটনার পরপরই দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পাশাপাশি নিহত শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন পাবনা-২ আসেনর সংসদ সদস্য আহমেদ ফিরোজ কবির।

উল্লেখ্য, গত দুইবছর পূর্বে নিহত তেহমীর আপন আরেক ভাই পানিতে ডুবে মারা যায়। আর হেলাল উদ্দিনের ৩ সন্তানের মধ্যে তেহমী ছিল ছোট। এ ঘটনায় এলাকার সর্বস্তরের মানুষের মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে