পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, দশম শ্রেণীর ২ ছাত্র গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: এপ্রিল ২৪, ২০২২; সময়: ১১:১৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, মহাদেবপুর : মহাদেবপুরে ৫ম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারনের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় দুই স্কুলছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। রোববার ভোরে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাদের নিজ নিজ বাড়ী থেকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, উপজেলার চেরাগপুর পুর্বপাড়া গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে আল আমিন (১৭) ও বাবুল হোসেনের ছেলে শোয়াইব (১৬)। তারা দুজনই শালবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। শনিবার রাতে ওই স্কুল ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে দুই ছাত্রের বিরুদ্ধে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২০১৯ সালের ৯ নভেম্বর শালবাড়ি আশ্রয় স্কুলে ৫ম শ্রেণীর ওই ছাত্রী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার জন্য স্কুলের পিছনে খোলা বাঁশঝাড়ে যায়। সেখানে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা আল আমিন তার বন্ধু রুহুল, রিমন, শোয়াইবের সহযোগীতায় ভিকটিমকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ করে।

এ সময় তার বন্ধুরা ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে। এ ভিডিও চিত্র ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে আল আমিন বিভিন্ন সময় একাধিকবার ওই স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়।

গত ২১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে ওই স্কুলছাত্রী স্থানীয় সনাতন মাষ্টারের কাছে থেকে প্রাইভেট পড়ে বাসায় ফেরার পথে দেওয়ানপুর ব্রিজের কাছে পৌছলে আসামীরা তাকে পুনরায় ধর্ষনের প্রস্তাব দেয়।

ওইদিন ওই স্কুলছাত্রী এতে রাজি না হলে ধারন করা ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভাইরাল করার হুমকি দিয়ে আসামীরা চলে যায়। ওই দিন বাড়ী ফিরে ওই স্কুল ছাত্রী ঘটনাটি অভিভাবকদের জানালে ওই স্কুলছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে শনিবার রাতে মহাদেবপুর থানায় পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা দায়ের করেন।

মহাদেবপুর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, মামলা দায়েরের পর ভিকটিম স্কুল ছাত্রীকে থানা হেফাজতে নিয়ে তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পূর্ণ হয়েছে এবং শনিবার রাতেই অভিযান চালিয়ে দুইজন আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীরা পলাতক আছে, তাদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চলছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপে