গুরুদাসপুরে ৫০ বছরের পুরনো সরকারি রাস্তা কেটে খাল খননের পায়তারা

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৪, ২০২২; সময়: ১০:৫৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবদেক, গুরুদাসপুর : নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের যোগেন্দ্র নগর এলাকা বাসীর বাঁধা উপেক্ষা করে প্রায় ৫০ বছরের পুরনো একটি সরকারি রাস্তা(ডহর) কেটে খাল খননের পায়তারা করছে স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহল। ওই খাল খনন বন্ধের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয়দের ভাষ্য ও অভিযোগ সুত্রে জানাযায়, উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের যোগেন্দ্রনগর মধ্যে পাড়ার সিরাজ মন্ডল ও আক্কাস মন্ডলের বাড়ী হইতে বেড়িবাধ পর্যন্ত একমাত্র সরকারি রাস্তাটি এলাকার কৃষকদেও জমির আবাদী ফসলসহ সব ধরনের মালামাল গরু ও মহিষের গাড়ীতে আনা নেওয়া ও মানুষের চলাচলের জন্য খুবই গুরুত্বপুর্ণ। এই রাস্তাটি যদি খনন করে খাল কাটা হয় তাহলে ওই এলাকার কয়েক হাজার কৃষকেরা চরম ভোগান্তিতে শিকার হবেন। তাই এলাকার কৃষকরা রাস্তাটি বাাঁচানোর স্বার্থে ইউএনও, এসিল্যান্ডসহ বিভিন্ন অফিস ধরনা দিচ্ছেন।

যোগেন্দ্রনগর গ্রামের মোঃ মাহাবুবুর রহমান, রেজাউল করিম, বেলাল হোসেন, শরিফুল ইসলাম ও মনোয়ারা বেগম অভিযোগ করে বলেন, এলাকাবাসী দীর্ঘদিন ধরে এই সরকারি রাস্তা দিয়ে চলাচল করে আসছে। দিকদাড়িয়া বিল পানি ব্যবস্থাপনা সমতির লিঃ এর সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক মোঃ ফিরোজ হোসেন এই সরকারি রাস্তা কেটে খাল খনন করে নিজেদের স্বার্থে ওই বিলে মাছ চাষসহ নানা রকম আর্থিক লাভের জন্য এই গুরুত্বপুর্ণ রাস্তাটি নষ্ট করার পায়তারা করছেন। তারা আরো জানান, আমাদের এলাকার অর্ধশত বছরের পুরোনা সরকারী রাস্তাটি যাতে নষ্ট না হয় তার জন্য সরকারী কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

এব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আনোয়ার হোসেনের সাথে, মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন কল ও এসএমএস করেও সারা পাওয়া যায়নি।

দিকদাড়িয়া বিল পানি ব্যবস্থাপনা সমতির লিঃ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফিরোজ হোসেন বলেন, সরকারী ওই রাসÍাটি বিলের পানি বের করার জন্য খনন করা হবে। তবে ওই নালার দুই পাশ দিয়ে রাস্তা করে দেওয়া হবে। এতে কৃষকের কিছু জমি রাস্তার মধ্যে আসতে পারে। বৃহত্তর স্বার্থে তাদের এই ছাড় টুকু দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি।

বিয়াঘাট ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান সুজা অভিযোগ প্রাপ্তি নিশ্চিত করে বলেন, রাস্তাটি জন গুরুত্বপুর্ণ। এই রাস্তা খনন করে খাল কাটলে ওই এলাকার কৃষকদের দুর্ভোগ সৃষ্টি হবে।

গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ তমাল হোসন বলেন, এবিষয়ে এলাকা বাসীর একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে