অফিসে ঢুকে ব্রাসফায়ার, কাউন্সিলরসহ নিহত ২

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২১; সময়: ৯:৩৪ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ মো. সোহেলের ব্যক্তিগত অফিসে ঢুকে মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়েছেন। এতে কাউন্সিলর সোহেল ও তার সহযোগী হরিপদ সাহা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও আটজন।

সোমবার বিকেল ৪টার দিকে নগরীর সুজানগর পাথুরিয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর এলাকায় আতঙ্ক ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক মহিউদ্দিন দুইজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত পুলিশ এ ঘটনার কারণ সম্পর্কে কিছু নিশ্চিত করতে পারেনি। তবে এলাকায় বালু ব্যবসা, ঠিকাদারি ও আধিপত্য বিস্তারের জের ধরে ওই কাউন্সিলরকে হত্যার উদ্দেশ্যেই এ ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

আহতরা জানান, কাউন্সিলর সোহেল সোমবার তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে স্থানীয় কয়েকজনকে নিয়ে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এসময় মুখোশধারী আট থেকে ১০ জনের একটি সন্ত্রাসী দল অফিসে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। সন্ত্রাসীরা কাউন্সিলরসহ কয়েকজনকে গুলি করার পর আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসেন। এসময় তাদের ওপরও গুলি করা হয়।

এদিকে কাউন্সিলরকে গুলি করার ঘটনা স্থানীয় মসজিদের মাইকে জানানোর পর শত শত মানুষ ঘটনাস্থলের দিকে ছুটে আসে। স্থানীয়রা গুলিবিদ্ধ কাউন্সিলরসহ আহতদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতরা হলেন, মো. রাসেল, মাজেদুল হক বাদল, রিজু মিয়া ও মো. জুয়েল।

ঘটনার পর সুজানগর পাথুরিয়াপাড়া, বউ বাজার, সংরাইশ এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আনওয়ারুল আজিম জানান, পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কায় ঘটনাস্থল ও আশপাশের এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেন, কী কারণে এ ঘটনা, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জড়িতরা যেই হোক দ্রুত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে