নিয়ামতপুরে কলেজ ছাত্র নিখোঁজের নেপথ্যে মামা

প্রকাশিত: নভেম্বর ২১, ২০২১; সময়: ১:২১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিয়ামতপুর : বোনের বাসা থেকে নামাজ পড়ার উদ্দেশ্যে বের হয়ে কলেজ ছাত্র হাসান ইসলাম (২১) রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ হয়েছে। নিখোঁজ হওয়া কলেজ ছাত্র নিয়ামতপুর উপজেলার হাজিনগর ইউনিয়নের খোর্দ্দচম্পা গ্রামের মোজাফফর হোসেনের ছেলে এবং নিয়ামতপুর সরকারী কলেজের স্নাতক ২ বর্ষের ছাত্র। নিখোঁজের বাবা মোজাফফর হোসেন থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন গত ১৬ নভেম্বর ২০২১। নিখোঁজের ৪২ দিন পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত তার কোন সন্ধান পাওয়া যায় নাই।

নিখোঁজ হাসান ইসলামের পরিবারের দাবী নিখোঁজের নেপথ্যে তার মামা একই গ্রামের মইনুদ্দিনের বিরুদ্ধে।

নিখাঁজের বাবা মোজাফফর হোসেন বলেন, আমার ছেলে নিয়ামতপুর সরকারী কলেজের স্নাতক ২য় বর্ষে লেখাপড়া করে। হঠাৎ সে মামার বাড়ীতে যাতায়াতের কারণে মামীর সাথে সম্পর্ক হয়ে যায়। সেই সম্পর্ককে ধামাপাচা দেওয়ার জন্য আমার ছেলেকে ব্রেন ওয়াস করে মানসিক সমস্যা সৃষ্টি করে তার নাবালিকা মেয়ের সাথে বিয়ে দেয়। আমরা কোনবাবেই তা না মানাতে তারা আমার ছেলেকে অজ্ঞাত স্থানে লুকিয়ে রেখেছে।

তিনি আরো বলেন, এর আগেও আমার ছেলের মানসিক সমস্যা সৃষ্টি করায় তাকে চিকিৎসা করিয়ে কিছুটা সুস্থ্য করে তুলেছিলাম। কিছুটা সুস্থ্য হওয়ায় গত ১০ অক্টোবর বিকেল ৪টায় তার বোনের বাসা উপজেলার গাবতলী যাওয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে বের হয়ে আর আসে নাই।

নিখোঁজের মা রোবেদা বেগম বলেন, আমার ভাই মইনুল ইসলাম তার নাবালিকা মেয়ে মনিরা খাতুন (১৩) এর সাথে আমার ছেলে হাসান ইসলামের বিয়ে দেয়। মনিরা কাপাষ্টিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী। নাবালিকা হওয়া সত্ত্বেও আমাদের অমতে ছেলের মানসিক সমস্যা সৃষ্টি করে গত ১৩ জুন ২০২১ নওগাঁ জজ কোর্টে এভিডেভিট এর মাধ্যমে বিয়ে দেয়। তখন থেকেই ছেলের মানুসিক সমস্যা আরো বৃদ্ধি পায় এবং ১০ অক্টোবর নিখোঁজ হয়।

নিখোঁজের মামা অভিযুক্ত মইনুদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায় নাই |

নিয়ামতপুর থানার অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির বলেন, থানায় সাধারণ ডায়েরী হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে