গুরুদাসপুরে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

প্রকাশিত: অক্টোবর ২০, ২০২১; সময়: ৬:৩৪ pm |

এস এম ইসাহক আলী রাজু, গুরুদাসপুর : বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দীর্ঘদিন মেলামেশার পর প্রতারনা করায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ির সামনে অনশন করছে প্রেমিকা লিপি খাতুন। দাবি, বিয়ে না করা পর্যন্ত তিনি এ অনশন ছেড়ে যাবেন না।
ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের গুপিনাথপুর গ্রামে।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়, নাজিরপুর ইউনিয়নের গুপিনাথপুর গ্রামের হামিদ আলীর ছেলে মোমিন আলীর সাথে পাশ্ববর্তী সিংড়া উপজেলার চামারি ইউনিয়নের মহিষমারি গ্রামের এসএসসি পরীক্ষার্থী লিপি খাতুন নামের এক মেয়ের সাথে গত ছয় মাস পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই প্রেমের সম্পর্কে লিপি খাতুনকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে কয়েকবার অবৈধ মেলামেশা করে। তাদের প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি জানাজানি হলে লিপি খাতুন একাধিকবার বিয়ের কথা বললেও বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে সময় ক্ষেপন করতে থাকে মোমিন।

অবশেষে মঙ্গলবার (১৯অক্টোবর) বিকালে লিপি খাতুন প্রেমিক মোমিনের বাড়িতে প্রবেশ করলে প্রেমিক মোমিন ও তার পরিবারের সদস্যরা মেয়েটিকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এদিকে ঘটনা জানাজানির পর মামিন ও তার পরিবার বাড়ির গেটে তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায়।

অপরদিকে মেয়ে বিয়ের দাবিতে মোমিনের বাড়ির গেটের সামনের রাস্তায় বসে অনশন শুরু করেন। এক পর্যায়ে প্রতিবেশী মোমিনের দাদা তার বাড়িতে লিপি খাতুনকে আশ্রয় দিয়েছে। এ বিষয়ে প্রেমিক মোমিন ও তার পরিবারের সদস্যরা পলাতক থাকায় তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

প্রেমিকা লিপি খাতুন জানান, তার সাথে মোমিন বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিকবার দৈহিক সম্পর্ক করেছে। আমি বিয়ে করার কথা বললে বিভিন্ন অজুহাতে এড়িয়ে যায়। তাই বিয়ের দাবিতে তার বাড়িতে এসেছি। কিন্তু মামিন ও তার পরিবার বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। এজন্য অনশন করছি। বিয়ে না করলে আত্মহত্যা ছাড়া আমার আর কোন উপায় নেই।

এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.আব্দুল মতিন জানান, বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। তবে এ ঘটনায় থানায় কেউ কোন অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে