নির্যাতনের শিকার সেই শিশুর দায়িত্ব নিলেন নওগাঁর এসপি

প্রকাশিত: জুলাই ৩১, ২০২১; সময়: ৬:৫২ pm |

জেষ্ঠ প্রতিবেদক, নওগাঁ : নওগাঁর মহাদেবপুরে মোবাইল চুরির অভিযোগে হাত ও পা বেঁধে নির্যাতনের শিকার শিশুটির চিকিৎসা ও ওষুধের সব খরচ বহন করার দায়িত্ব নিয়েছেন নওগাঁর পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়া। তার দিক নির্দেশনায় শুক্রবার রাতেই শিশুটিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মহাদেবপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। সেখানে শিশুটিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

শনিবার দুপুরে মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, শুক্রবার নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়ক সংলগ্ন বাগাচারা এলাকায় নির্মাণাধীন একটি অটো গ্যাস ফিলিং স্টেশনের সাইট অফিসে নির্যাতনের শিকার হওয়া সেই শিশুরটি ও তাঁর পরিবাবের সাথে কথা বলেছেন পুলিশ সুপার মহোদয়। এসময় তিনি শিশুটির চিকিৎসা ও ওষুধের সব খরচ বহন করবেন বলে জানিয়েছেন। এছাড়া পুলিশ সুপারের নির্দ্দেশে শিশুটিকে খাবার ,পোষাক ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

নির্যাতনের শিকার শিশুর বাবা খোরশেদ আলম জানান, আমার ছেলের শরীরে লাঠির আঘাতের দাগ এখনো উঠেনি। সে মানসিক ভাবে ভেঙে পরেছে। ওই ঘটনার পর প্রথমে স্থানীয় এক ডাক্তারের কাছে প্রাথমিক চিকিৎসা করিয়েছি। পরে অবস্থার অবনতি হলে মহাদেবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্তানের চিকিৎসা করানোর টাকা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। পুলিশ সুপার চিকিৎসার সব খরচ বহনের আশ্বাস দিয়েছেন। তিনি পাশে দাঁড়ানোই এখন কিছুটা সাহস পেয়েছি।

নওগাঁর পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়া বলেন, শিশুটির বাবা অর্থের অভাবে সন্তানকে ভালো চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। পরে আমরা শিশুটির চিকিৎসা ও ওষুধের সব খরচের দায়িত্ব নিয়েছি।‘

এর আগে মারধরের ঘটনায় শুক্রবার সন্ধ্যায় ফিলিং স্টেশনের নৈশপ্রহরী মূল অভিযুক্ত বকুল হোসেন (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। তাঁর বাড়ি উপজেলার চৌমাশিয়া গ্রামে।

পুলিশ জানিয়েছে, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি নির্যাতনের কথা স্বীকার করেছে। এঘটনায় শিশুটির বাবা বাদি হয়ে একটি মামলা করেছেন । শনিবার সকালে বকুল হোসেনকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

  • 2
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে