ঈদের দিনেই সুজানগর পৌর শহরের কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ

প্রকাশিত: জুলাই ২২, ২০২১; সময়: ২:৫১ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুজানগর : সুজানগর পৌর শহরে ঈদের দিনেই কোরবানির পশুর সব বর্জ্য অপসারণ করা হয়েছে। বুধবার(২১ জুলাই) টানা কয়েক ঘন্টা পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা পৌর বাজার সহ পৌর শহরের অলিগলি ঘুরে কোরবানির পশুর ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা সব বর্জ্য অপসারণ করেন। পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম রেজা বর্জ্য অপসারণের পুরো কাজটি সরেজমিনে তদারক করেন। পৌর কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে, ঈদুল আজহার নামাজ শেষেই শহরের বিভিন্ন স্থানে কোরবানির গরু,মহিষ ও ছাগল জবাই শুরু হয়।

শহরের বিভিন্ন এলাকাতে কোরবানি শেষে পশুর বর্জ্য নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে রাখেন পৌর নাগরিকেরা। এদিন দুপুরের পর থেকেই পৌর কর্তৃপক্ষ শুরু করেন পশুর বর্জ্য অপসারণের কাজ। পৌরসভার প্রায় ২০ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী পৌর নাগরিকদের ফেলা রাখা কোরবানির বর্জ্য অপসারণে নামেন। বর্জ্য অপসারণের পরই বর্জ্য ফেলা রাখা স্থানে ছিটানো হয় ব্লিচিং পাউডার।এছাড়া পৌর বাজারে কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনার স্থান স্থানীয় দমকলবাহিনীর সহযোগিতায় রাত আটটার দিকে পানি দিয়ে পরিস্কার করে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।এদিন রাত ৯টার মধ্যে শহরে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ শেষ করা হয়। পৌর মেয়র রেজাউল করিম রেজার তত্ত্বাবধানে এ কাজ তদারক করেন পৌরসভার কঞ্জারভেন্সি পরিদর্শক হাসান উদ্দিন।

পৌর মেয়র রেজাউল করিম রেজা বলেন,কোরবানি শেষেই বর্জ্য অপসারণের কাজ শুরু করা হয়। আমরা পরিছন্নতাকর্মীদের নিয়ে মাঠে নেমে পড়ি। আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই সুজানগর পৌর শহরকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। শহরবাসী যাতে কোরবানির বর্জ্যরে দুর্গন্ধে না ভোগেন, সে জন্য দ্রুত বর্জ্য অপসারণের চেষ্টা করেছি। রাত ৯টার মধ্যেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ শেষ হয়েছে। এ সময় পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম রেজা একটি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে সব নাগরিকের সহযোগিতা চেয়েছেন ।

 

  • 35
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে