জয়পুরহাটে পালিয়ে যাওয়ার সাত ঘন্টা পরে হাতকড়াপরা আসামী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: জুলাই ১৬, ২০২১; সময়: ৭:৫২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, জয়পুরহাট : জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে হাতকড়া পড়া অবস্থায় জুয়েল হোসেন (২০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী আসামী পুলিসকে ধাক্কা মেয়ে পালিয়েছে। পরে সাত ঘন্টা পর মাদক ব্যবসায়ী ওই আসামীকে আবার গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

শুক্রবার ভোর সাড়ে চারটার দিকে উপজেলা বটতলী এলাকার তিলাবদুল গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এলাকা থেকে ওই আসামী হাতকড়াপড়া অবস্থায় পুলিশকে ধাক্কা মেরে পালিয়ে ছিলেন। ক্ষেতলাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নীরেন্দ্রনাথ মন্ডল এ বিষয় নিশ্চিত করেছেন। আসামী ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী এলাকার তিলাবদুল গ্রামের তমিজ উদ্দিনের ছেলে। সে ওই এলাকায় মাদক ব্যবসায়ী বলে পরিচিত।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে ক্ষেতলাল-বটতলী সড়কে ডিউটি পালনের সময় থানার এসআই জাহিদুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে মাদক ব্যবসায়ী জুয়েল হোসেনকে তার গ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় আসামী আঘাত পেয়েছিলেন। তখন পুলিশ রাতেই আসামীকে হাতকড়া পড়িয়ে চিকিৎসার দেওয়ার জন্য ক্ষেতলাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। চিকিৎসা শেষে আসামীকে নিয়ে পুলিশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বের হয়।

সেখান থেকে থানায় যাওয়ার পথে আসামী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের রাস্তায় হয়ে যাওয়ার পথে পুলিশকে ধাক্কা মেরে হাতকড়াপরা অবস্থায় দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পরপরই পুলিশের একাধিক টিম পালিয়ে যাওয়া আসামীকে ধরতে অভিযান নামে। পরে শুক্রবার ভোরে বটতলী এলাকায় মাঠ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপসহকারী কমিউটিনি মেডিকেল কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, রাতে ওই আসামীকে পুলিশ হাতকড়া পরিয়ে চিকিৎসার জন্য এনেছিল। চিকিৎসা শেষে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের রাস্তা হয়ে যাওয়ার পথে পুলিশের কাছ থেকে ওই আসামী হাতকড়াপরা অবস্থায় পালিয়ে গেছে। পরে পুলিশ ওই আসামীকে খোঁজার জন্য রাতেই আবারও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসেছিল।

ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নীরেন্দ্রনাথ মন্ডল বলেন, ওই আসামীকে গ্রেফতারের পর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দিতে যাওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেখান থেকে থানায় আসার পথে সে পালিয়ে যায়। পরে ভোর রাতে তাকে বটতলী মাঠ থেকে আবারও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আসামী একজন চিহ্নক মাদক ব্যবসায়ী এবং সে নিজেও মাদক সেবন করে। তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদকেরর মামলা আছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে