নন্দীগ্রামে আমন ধানের চারা রোপন শুরু

প্রকাশিত: জুলাই ১৩, ২০২১; সময়: ৭:৫০ pm |

অদ্বৈত কুমার আকাশ, নন্দীগ্রাম : বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন মাঠে আমন ধানের চারা রোপনের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষকরা। দেশের উত্তরাঞ্চল তথা বগুড়ার শস্যভান্ডার হিসেবে খ্যাত নন্দীগ্রাম উপজেলার কৃষকরা বছরে ৩ বার ধানের চাষাবাদসহ রবিশস্য’র চাষাবাদ করে আসছে। এবারও ইতোমধ্যেই উপজেলার কৃষকরা রোপা আমন ধানের চাষাবাদ শুরু করেছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি রোপা আমন মৌসুমে নন্দীগ্রাম উপজেলায় ২০ হাজার ২শো হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এখন পুরোদমে মাঠের ফসলি জমিতে রোপা আমন ধানের চারারোপনের কাজ চলছে। এ উপজেলায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৮৪ হাজার ১৪ মেট্রিটন ধান।

সরেজমিনে নন্দীগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গিয়ে দেখা যায়, কৃষকরা এখন আমন ধানের চারা রোপনের জন্য ব্যস্ত সময় পার করছে। কোন কোন এলাকার জমির পানি শুকিয়ে যাচ্ছে। এজন্য খুব তারাতাড়ি চারা রোপনের জন্য জমি তৈরি করে নিচ্ছে। বেশির ভাগ কৃষক বি-ধান ৪৯, ৩৪, ৭১, বিনা-৭, ১৭, ও কাটারিভোগ জাতের ধান চাষ করছে।

উপজেলার দাসগ্রাম গ্রামের আদর্শ কৃষক বেলাল হোসেন জানান, আমরা অতি গুরুত্বের সাথে বাম্পার ফলনের আশায় রোপা আমন ধানের চাষাবাদ শুরু করেছি। ধানের বাজার ভালো তাই কোন জমি ফেলে রাখা যাবেনা।

খরনা গ্রামের কৃষক ইমন হোসেন বলেন, আমি ১০ বিঘা জমিতে ৪৯ ও ৬ বিঘা জমিতে ৩৪ ধান লাগাবো। জমি রোপনের কাজ শুরু করেছি।

বেড়খলার কৃষক জীবন কুমার সরকার জানান, আমি ১৫ বিঘা জমিতে ধানের চাষাবাদ করি। কিছু জমিতে আগাম সবজি ও মরিচ চাষ করি। আমন ধান চাষের জন্য মাঠে নেমে পরেছি।

ধান রোপনের শ্রমিক মিন্টু মিয়া বলেন, আমরা প্রতিবিঘা জমি ধান লাগানের জন্য ৯ শো টাকা করে নিচ্ছি। খুব রোদ-গরম তাই কাজ করা কঠিন।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আদনান বাবু সাথে কথা বললে তিনি জানান, ২০ হাজার ২ শো হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আশাকরি তারচেয়ে বেশি জমিতে চাষাবাদ হবে। এই উপজেলায় বিগত বছরের মত এবারও আমান ধানের বাম্পার ফলন হবে। সে লক্ষ্যনিয়েই আমরা মাঠপর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে