নিয়ামতপুরে পশুর হাটে উপচে পড়া ভিড়, স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

প্রকাশিত: জুলাই ১০, ২০২১; সময়: ৫:৩৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিয়ামতপুর : নওগাঁর নিয়ামতপুরে উপজেলার শাংশৈল পশু হাটে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে কোরবানির পশু হাট বসেছে। শনিবার (১০ জুলাই) উপজেলা সদরের একমাত্র এই পশুর হাটে ছিল উপচে পড়া ভিড়।

হাট কমিটির পক্ষ থেকে করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মানার জন্য মাইকিং ছাড়া কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয় নাই। ফলে করোনার উচ্চ সংক্রমণের এই সময়ে বিষয়টি মারাত্মক ঝুঁকির সৃষ্টি করেছে।

এদিকে, প্রচুর গবাদি পশুর আমদানি দেখা গেলেও হাট কমিটির লোকজন জানান, স্বাভাবিকের চেয়ে হাটে মাত্র এক চতুর্থাংশ পশু আমদানি হয়েছে। কঠোর বিধি নিষেধের কারণে যানবাহন বন্ধ থাকায় দূর থেকে হাটে পশু কম এসেছে। এর ফলেই হাটে পশুর আমদানি কম হয়েছে।

হাটে আসা গৃহস্থ ও খামারিরা জানান, হাটে কোরবানির প্রচুর পশু উঠলেও ক্রেতা ছিল বেশ কম। ফলে এর আগের হাটগুলোর চেয়ে শনিবারে পশুর দামও ছিল কিছুটা কম।

হাটের ব্যবসায়ীরা জানান, হাটে গরুর দাম অন্য হাটগুলোর চেয়ে ১০ থেকে ২০ শতাংশ কম ছিল।
হাটে গরু নিয়ে আসা উপজেলার শাংশৈল গ্রামের সেন্টু বলেন, তিন মাস পূর্বে চারটি গরু কিনেছিলাম। চারটিতে ১ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। প্রতিটি গরুর দাম ছিল ৪৫ হাজার করে। দুটি বিক্রি হয়ে গেছে। বর্তমানে দুটি রয়েছে। আমি দাম চাচ্ছি ১ লক্ষ ৯০ হাজার টাকা প্রতিটি ৯৫ হাজার টাকা। ক্রেতারা ১ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা বলেছে।

এদিকে সরেজমিনে হাট ঘুরে গাদাগাদি করে ক্রেতা-বিক্রেতাদের অবস্থান করতে দেখা যায়। অনেকের মুখেই মাস্ক দেখা যায়নি। তাছাড়া হাটে চা এর ষ্টল বসেছে। সেখানেও গাদাগাদি করে বসে চাসহ অন্যান্য খাবার খাচ্ছেন এবং আড্ডা দিচ্ছেন।

হাটে গরু নিয়ে আসা দীঘিপাড়া গ্রামের শফিকুল ইসলাম বলেন, মাস্ক পইড়্যা হাটে আইসিল্যাম। কিন্তু গরমে মুখে মাস্ক রাখা যায় না। তাই পকেটে রাখিছি।

হাটের ইজারাদারের প্রতিনিধি বলেন, গরুর হাট বিধিনিষেধের বাইরে। তাই আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাট বসানোর উদ্যোগ নিয়েছি।

এ বিষয়ে নিয়ামতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জয়া মারীয়া পেরেরা বলেন, চলমান বিধিনিষেধ অনুযায়ী অস্থায়ী হাট বসায় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও নিয়মিত হাটগুলোর ক্ষেত্রে তা প্রযোজ্য নয়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাট পরিচালনা করার জন্য শাংশৈল হাট কমিটিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে