সিরাজগঞ্জে মালিকানাধীন জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মাণে পায়তারার অভিযোগ, আদালতে মামলা

প্রকাশিত: জুলাই ৭, ২০২১; সময়: ১২:৪৪ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরীতে ব্যক্তি মালিকানাধীন জমিতে আশ্রয়ন প্রকল্প নির্মানের পায়তারার অভিযোগ উঠেছে।

জমির মালিক কৈজুরী পাথালিয়া পাড়ার পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকে কর্মরত আলমগীর হোসেন অভিযোগ করে রেকর্ড সংশোধনীর জন্য আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। একই সাথে বিষয়টি স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার ভূমিকে অবহিতের জন্য আদালত পত্র দ্বারা জানিয়েছে।

মামলা দায়েরকারী বাদী আলমগীর হোসেন জানান, ১৯৪৯ সালে তার দাদা চাঁদ উল্লাহ প্রামানিক উপজেলার কৈজুরী মৌজার সাবেক ১৫২১ সাল ১৯৭১ দাগের ৮৬ শতাংশ জায়গা কিনে বসতবাড়ি ও জমি আবাদ করে আসছি। দলিল করা এই জমিটি ডিএস সূত্র ধরে জমির মালিক মফেদ আলীর ওয়ারিশ গনদের কাছ থেকে কেনা হয়। ডিএস রেকর্ড তাদের নামেই ছিল। হঠাৎ আমাদের অগোচরে রেকর্ড নাগাদ কালে ৮৬ শতাংশের মধ্যে ৪৩ শতাংশ তাদের নামে রেকর্ড হয়।

আর বাকি জায়গা খাস-খতিয়ানে চলে যায়। হঠাৎ গত ২ সপ্তাহ আগে কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম এ ৪২ শতাংশ আবাদী জমিতে গৃহহীনদের জন্য সরকারী আশ্রায়ন প্রকল্পের ঘর নির্মান করবে বলে আমরা জানতে পারি।

বিষয়টি নিয়ে কৌশলী চেয়ারম্যানের কাছে গেলে, সে আমাদের বলে আমার এখানে হাত নেই। ইউএনও সাহেবের নির্দেশেই তা করা হচ্ছে। এজন্য উপায় না পেয়ে গত ২৮ জুন শাহজাদপুর মোকাম সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে জমির রেকর্ড সংশোধনীর জন্য একটি মামলা দায়ের করা হয়।

পরে মামলা দায়েরের বিষয়টি অবহিত করতে ৩০ জুন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমিকে আদালত লিখিত ভাবে জানায়।

তারপরও গত রোববার (৪ জুলাই) উপজেলা ভুমি অফিসের সার্ভেয়ার লিখন হোসেন কৈজুরী পাথালিয়া পাড়ায় অবস্থিত এই জমিতে এসে জমির পরিমাপ করে আমাদের বাড়ির সবাইকে এখানে গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মান করা হবে জানিয়ে যায়। তখন থেকেই আমাদের পুরো পরিবার হতাশায় মধ্যে দিন কাটাচ্ছি।

আলমগীর হোসেন আরো জানান, আমাদের পুর্ব পুরুষের কেনা সম্পত্তি। দীর্ঘ দিন ধরে বসবাস ও জমি আবাদ করে আসছি। এভাবে আমাদের ভুমিহীন করা হবে তা কখনো ভাবিনি। অন্যদের আশ্রয়ের জন্য আরেক জনের জমি ছিনিয়ে নেবার যে পরিকল্পনা চলছে তাতে আমরা খুবই ব্যথিত। এ কারনেই রেকর্ড সংশোধনীর জন্য আমরা মামলা করেছি।

তারপরও আমাদের জায়গা দখলের পায়তারা করা হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের কাছে আমাদের আকুতি দয়া করে আমাদের ভুমিহীন করবেন না। যেহেতু আদালতে মামলা দায়ের হয়েছে, তাই আদালত যে সিদ্ধান্ত দেবে তা আমরা মাথা পেতে নেব। বিচার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা চাই এই জমি যেন দখল করা না হয়।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে এলাকা জুড়ে তোলপাড় চলছে। এ ব্যাপারে কৈজুরী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুনর রশিদ জানান, তারা দীর্ঘ দিন ধরে এখানে বসবাস করছে। শুনেছি দলিল ও অন্যান্য রেকর্ডও রয়েছে। তারপরও সেখানে ভমিহীনদের ঘর তৈরীর জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। আসলে ভমিহীনদের আবাস গড়তে আরেকজনকে ভুমিহীন করা অযৌক্তিক। তাই বিষয়টি ভেবে চিন্তে করার অনুরোধ করছি প্রশাসনের কাছে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, উপজেলা প্রশাসন থেকে সেখানে আশ্রায়ন প্রকল্প তৈরীর উদ্যোগ নিয়েছে। এতে আমার কিছু করার নেই।

এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী শাহ মোহাম্মদ শামচুুজ্জোহা জানান, আমরা প্রথমে জমিটি নির্ধারন করে দেখি তাদের কাগজ পত্র ঠিক রয়েছে। আমরা কারো ক্ষতি করে আশ্রায়ন প্রকল্প করবো না। বিষয়টি যথাযথ ভাবে ক্ষতিয়ে দেখেই পদক্ষেপ নেয়া হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে