খাদ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে পত্নীতলায় ১০৮টি সেচ্ছাসেবী কমিটি গঠন

প্রকাশিত: জুলাই ৫, ২০২১; সময়: ১১:০৫ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, পত্নীতলা : নওগাঁর পত্নীতলাসহ জেলার ১১টি উপজেলায় করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে ওর্য়াডে ওয়ার্ডে সেচ্ছাসেবী কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলায় সর্বশেষ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সভায় খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার জেলার প্রতিটি গ্রামে গ্রামে সেচ্ছাসেবী টিম গঠনের ধারণা থেকে জেলায় প্রায় দেড় হাজার কমিটি গঠন হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় পত্নীতলা উপজেলায় ১টি পৌরসভায় ৯টি এবং ১১টি ইউনিয়নের ৯৯টি ওয়ার্ডে মোট ১০৮টি সেচ্ছাসেবী টিম গঠন করা হয়েছে। যারা ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। তা ফলপ্রসু হচ্ছে। তারা পাড়া মহল্লার মানুষকে সচেতন করছেন। জরুরী সেবায় সহযোগীতা করছেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের সমন্বয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড এলাকার পুইয়া স্কুলের মোড় ও সোনালী ফিলিং স্টেশন মোড় এলাকায় এক দল তরুণ হ্যান্ড মাইক হাতে মানুষকে সচেতন করছে। দোকান পাট না খোলার জন্য ব্যবসাীদের অনুরোধ করছেন। করোনা প্রতিরোধে জরুরী সেবা প্রদানে নিয়োজিত সেচ্ছাসেবক হিসাবে এ সময় ওই টিমে উপস্থিত ছিলেন রুহুল আমিন, প্রসেনজিত কুমার, আনন্দ কুমার, নয়ন কুমার, সত্য চন্দ্র, দেলোয়ার হোসেন, জুয়েল রানা, সুজয় চন্দ্র, কালি চরন, সাজেদুল ইসলাম সুপদ কুমার প্রমূখ । স্থানীয় ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এ বিষয়ে নজিপুর পৌর মেয়র রেজাউল কবির চৌধুরী বলেন, আমরা নৈতিক এবং সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে করোনা প্রতিরোধে জরুরি সেবা প্রদানের লক্ষ্যে টিম গঠন করেছি। যারা ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে কাজ শুরু করছে। জনগণের আন্তরিক উপলব্ধির কারণে চলমান লকডাউন আপাতদৃষ্টিতে সফল বলেই মনে করেন তিনি। পৌরবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে করোনা প্রতিরোধে সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এস এম খালিদ সাইফুল্লাহ বলেন, সোমবার পর্যন্ত পিসিআর ও এন্টিজেন টেস্টে ২৪ জন পজিটিভ রেজাল্ট আসছে। উপজেলায় এ পযর্ন্ত মোট পজিটিভ ৩৬৫ জন, মোট সুস্থ ২৪৩ জন, মোট মৃত‍্যু ৬ জন। আগামী কাল মঙ্গলবার ৯ জনকে সুস্থ ঘোষনা করা হবে। সংক্রমন বাড়ছেই তিনি সবাই কে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন সরকার বলেন, করোনা প্রতিরোধ বিষয়ক এক সভায় মাননীয় খাদ্যমন্ত্রীর ধারণার আলোকে আমরা নজিপুর পৌরসভা এবং উপজেলার প্রত্যেকটি ইউনিয়নে মোট একশত আট (১০৮) টি দলে দশজন করে সর্বমোট ১০৮০ জন স্বেচ্ছাসেবক এবার স্থানীয় প্রসাশনের সঙ্গে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছে। স্থানীয় জনগণের আন্তরিক সহায়তার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে