কঠোর লকডাউনের প্রথম দিনে জনশূন্য আত্রাইয়ের সড়ক ও হাট-বাজার

প্রকাশিত: জুলাই ১, ২০২১; সময়: ৬:৫৯ pm |

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই : নওগাঁয় আত্রাইয়ে কঠোর লকডাউনের বৃষ্টি ভেজা প্রথম দিনে উপজেলার বিভিন্ন রাস্তা-ঘাট অনেকটাই ফাঁকা দেখা গেছে। সারাদেশে সরকার ঘোষিত এক সপ্তাহের লকডাউন কঠোর ভাবে বাস্তবায়নে আত্রাইয়ের মাঠে নেমেছে স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী ও বিজিবি।

তবে কিছু গুরুত্বপূর্ণ যানবাহনগুলোর মধ্যে অ্যাম্বুলেন্স, ওষুধ ও খাবারের গাড়িগুলোকে চলতে দেখে গেছে। অল্প সংখ্যক ব্যাটারী চালিত চার্জার ভ্যান, অটোরিক্সা ও পন্য পরিবহনকারী ট্রাককে চলাচল করতে দেখা গেছে। এছাড়াও বিভিন্ন দিন মুজুর কাজ করা শ্রমিকদের বাহিরে বের হতে দেখা গেছে। এনিয়ে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখে পড়তে হয়েছে তাদের।

এছাড়া কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ সার্বক্ষণিক মাঠে রয়েছে বলে জানান- আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন- আত্রাই থানা পুলিশের পাশাপাশি উপজেলার জনগুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সেনাবাহিনী ও বিজিবি, র‌্যাব টহল দেবে।

বেলা সাড়ে ১১টর দিকে আত্রাই উপজেলার রেলগেট এলাকায় যানবাহন শূণ্য দেখা গেছে। সেখানে বৃষ্টিতে দাঁড়িয়ে পুলিশেকে দাঁয়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। এনিয়ে আত্রাই থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল কালাম আজাদ জানান- ‘সরকারের দেওয়া প্রজ্ঞাপনের আলোকে তারা ডিউটি পালন করছেন।’ তিনি আরো বলেন, সকাল থেকে ভারি বর্ষণের মাঝেও পুলিশ টহলে অব্যাহত রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন সড়কে চেকপোস্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

বন্ধ আছে সকল ধরনের দোকানপাট, শপিংমল ও বিপনী বিতান। তবে কাঁচাবাজার গুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বেচা-কেনা করার থাকলে তা মানা হচ্ছে।

আত্রাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইকতেখারুল ইসলাম জানান, সারা দেশে করোনা সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ১ জুলাই থেকে ৭ জুলাই পর্যন্ত সাতদিনের কঠোর লকডাউন জারি করেছে। জারিকৃত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী নওগাঁর আত্রাই উপজেলায় আজ থেকে এই লকডাউন বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। সে অনুযায়ী আত্রাইয়ে সকল সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে।

বিধিনিষেধ চলাকালীন নওগাঁয় জেলার অভ্যন্তরীণ সকল রুটে সকল প্রকার গণপরিবহনসহ সিএনজি, ভ্যান, মোটরসাইকেল, থ্রি-হুইলার, হিউম্যান হলার বন্ধ থাকবে। তবে রোগী পরিবহনকারী অ্যাম্বুলেন্স, পণ্য বহনকারী ট্রাক এবং জরুরি সেবাদানকারী পরিবহন এই বিধিনিষেধের আওতামুক্ত থাকবে।

এছাড়া কাঁচাবাজার ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান স্বাস্থ্য বিধি মেনে খোলা থাকবে। তবে সকল ধরনের দোকানপাট, শপিংমল, হোটেল, রেস্তোরাঁ, চায়ের দোকান বন্ধ থাকবে। ওষুধের দোকান সার্বক্ষণিক খোলা রাখা যাবে বলে জানান তিনি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে