তাড়াশে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

প্রকাশিত: জুন ২৯, ২০২১; সময়: ৫:২৯ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, তাড়াশ : সিরাজগঞ্জের তাড়াশে উপজেলা প্রশাসনের তৎপরতা থাকলেও লকডাউন বা স্বাস্থ্যবিধি মানছে না কেউ। হাট-বাজারে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। চলছে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কেনাকাটা। বেশিরভাগ মানুষের মুখে মাস্ক নেই। প্রতিদিনই উপজেলাসহ জেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছেই। তাড়াশে গত এক সপ্তাহে প্রায় ৫০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১০ জন করোনা শনাক্ত হয়েছেন।

জানা যায়, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানার ওপর কঠোর হওয়ার জন্য সোমবার ফের লকডাইনের ঘোষণা দেয় সরকার। এ ঘোষণার পর উপজেলা প্রশাসন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা ও বিধি নিষেধ মেনে চলার জন্য মাইকিং করেন।

সরজমিনে মঙ্গলবার (২৯ জুন) তাড়াশ পৌর সদরসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারগুলোতে কেনাকাটা করতে আসা মানুষের ভিড় প্রতিদিনের মতোই স্বাভাবিক ছিল। কারো মুখে মাস্ক নেই। স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করছে না কেউ।

গ্রামাঞ্চলের অবস্থা আরও ভয়াবহ। গ্রামের হাটবাজারগুলো আগের মতোই চলছে। কেউ মাস্ক পরছে, কেউ বা পরছে না। স্বাস্থ্যবিধির মানার বালাই নেই কারোর মাঝে। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে আইনশৃংখলা বাহিনীর নজরদারি কম থাকায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। যদিও করোনা শহর থেকে গ্রাম পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ছে।

আব্দুল আজিজ নামে এক ব্যাক্তি বলেন, পেটের দায়ে বের হয়েছি কাজের জন্য। কিসের লগডাউন আবার কিসের স্বাস্থ্যবিধি? করোনায় আমাদের কিছু হবে না।

তাড়াশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জামাল মিয়া শোভন বলেন, গত এক সপ্তাহে উপজেলায় ১০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। তাই সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। না হলে পরিস্থিতী ভয়াবহ হবে। তিনি দ্রুত টিকা দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

তাড়াশ উপজেলা নিবার্হী অফিসার (ইউএনও) মোঃ মেজবাউল করিম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও ঘরে থাকার জন্য প্রতিদিন মাঠ পর্যায়ে উপজেলা প্রশাসন কাজ করছে। মানুষকে সচেতন করতে মাইকিং করা হচ্ছে এবং অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে