জয়পুরহাটে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে লাখ টাকা ছিনতাই

প্রকাশিত: জুন ২৮, ২০২১; সময়: ১১:২৭ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, জয়পুরহাট : জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল পৌরসভা এলাকা হতে ১ লাখ টাকাসহ একটি ব্যাগ ছিনতাই হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ইয়ন গ্রুপ অব কোম্পানির কর্মচারী ও কর্মকর্তা।

জানা গেছে, সোমবার ( ২৮ জুন) বিকেলে ক্ষেতলাল উপজেলার পৌরসভা এলাকার ইটাখোলা-মোলামগাড়ীহাট বাজার রাস্তার কাজীপাড়া নামক ব্রিজের পশ্চিম পার্শ্বে ইয়ন গ্রুপ অব কোম্পানির ঔষধ সরবরাহকারী গাড়ী থামিয়ে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়ির কাগজপত্র যাচাই এবং ব্যাগের ভিতরে কি আছে খুঁজে দেখার কথা বলে ব্যাগ ছিনতাই করে পালিয়ে যায়।

ব্যাগে ঔষদের দোকান হতে আদায়কৃত ১ লক্ষ টাকা, আইডি কার্ড, কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং ভিভো কোম্পানির একটি ১০ হাজার টাকা মূল্যের মোবাইল ফোন ছিল বলে ছিনতাইয়ের স্বীকার কোম্পানি ডেলিভারিম্যান ইলিয়াস হোসেন ( ৪৫) জানান।

ডেলিভারিম্যান বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের ইলিয়াস হোসেন জানান, আমি এবং গাড়ির ড্রাইভার ক্ষেতলাল থানা বাজার হতে ইটাখোলা বাজার দিয়ে মোলামগাড়ীহাট যাবার সময় ইটাখোলা বাজার পার হওয়ার একটু পরেই একটি ব্রীজ পাওয়া যায়। সেই ব্রীজের পূর্বে মোটরসাইকেলযোগে ২ জন আরোহী আমাদের গাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে গাড়ীর গতিরোধ করে। তারা দুইজন নিজেদের ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে গাড়ির কাগজপত্র এবং অবৈধ কিছু আছে কিনা যাচাই করতে চায়। তারা গাড়ির কাগজপত্র দেখে এবং শেষে ব্যাগে কি আছে দেখি বলে আমার হাত থেকে ব্যাগটা নিয়ে নেয় তারপর ব্যাগটি আমাকে ফেরত না দিয়ে তার সহযোগীকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ইটাখোলা বাজার অভিমুখে চলে যায়। তারা যাওয়ার সময় বলে তোমরা থানায় আসো। পরে থানায় গেলে বুঝতে পারি আমরা ছিনতাইকারীর কবলে পড়েছি।

এ বিষয়ে কোম্পানির সিনিয়র সেলস অফিসার বগুড়ার নন্দিগ্রামের জুয়েল আহম্মেদ জানান, আমি সে সময় গাড়ীতে ছিলাম না নামাজ পড়ার জন্য নেমেছিলাম ওরা দুইজন গাড়ীতে ছিল।

গাড়ীর চালক আব্দুর রশিদ ( ৫২) বলেন, ওই দুই জন লোক ডিবি পুলিশ পরিচয়ে গাড়ীর সামনে দাড়ায় এবং হাত হতে টাকার ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে ইটাখোলার দিকে চলে যায়। তারা দেখতে শুনতে সুন্দর। দেখে বুঝার উপায় নেই তারা ছিনতাইকারী। তাদের বয়স ৩২ হতে ৩৫ বছরের মতো হবে।

ক্ষেতলাল থানা অফিসার ইনচার্জ ( তদন্ত) শাহ আলম বলেন, থানায় মৌখিক অভিযোগ করলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। তবে ঘটনার কোন সত্যতা খোঁজে পাওয়া যায়নি।

থানা অফিসার ইনচার্জ নীরেন্দ্র নাথ মন্ডল বলেন, ঘটনাস্থলে আমাদের পুলিশ গিয়েছে। আসলে ঘটনা বুঝা যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে