সাতক্ষীরায় করোনায় আরও ৯ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২১; সময়: ১:১৮ pm |

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সীমান্তবর্তী জেলা সাতক্ষীরায় করোনা সংক্রমণের হার আবারও বেড়ে গেছে। বেড়েছে মৃতের সংখ্যাও। চলমান লকডাউনে শিথিলতা আর সর্বত্র স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতাকে দায়ী করছে করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল প্রশাসন। মঙ্গলবার (২২ জুন) সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় করোনায় আক্রান্ত একজন এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে ৮ জন মারা গেছেন।

গতকাল করোনা টেস্টের হার ৪৩ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৪৬ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ১৮৮ জনের মধ্যে ৮৬ জনের পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। প্রতিদিনই বাড়ছে নতুন রোগী ভর্তি। রোগীর চাপে হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকসহ জনবল সংকটে থাকা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের কর্তৃপক্ষকে। এদিকে ঢিলেঢালাভাবে চলছে বিধিনিষেধ। তাছাড়া চলমান বিধিনিষেধের মধ্যেই এখনও গ্রামেগঞ্জে হাটে বাজারে অনেকটা স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। কেউ মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না করোনায় বা করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তির দাফন কাফনেও। জেলার গ্রামে গ্রামে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। জ্বর সর্দি কাশি নিয়ে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন হাসপাতালে বা ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রোগীর দেখাশোনা করা পরিবারের লোকজনও।

মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার সঙ্গে সঙ্গে রোগীর দেখাশোনা করা পরিবারের লোকজনকে পরীক্ষার আওতায় এনে সতর্কতার সঙ্গে চললে করোনা সংক্রমণ কমে যাবে বলে মনে করেন সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. কুদরত ই খুদা। সরকারি তথ্য মতে, জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ২৮১ জন, আর করোনায় মারা গেছেন ৬২ জন। বর্তমানে ৩৯২ জন করোনায় ও করোনা উপসর্গ নিয়ে হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আর বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছে ৭৮৬ জন করোনা রোগী। এ পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল দুই হাজার ৯৯০ জন। যদিও বেসরকারি হিসাবে করোনা উপসর্গ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেশি বলে খবর পাওয়া গেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে