মহাদেবপুরে কালনা ব্রীজ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি সেলিম

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২১; সময়: ৯:১৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, মহাদেবপুর : নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার আত্রাই নদীর উপর কালনা ব্রীজের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও নওগাঁ-৩ (মহাদেবপুর-বদলগাছী) আসনের এমপি আলহাজ্ব মোঃ ছলিম উদ্দিন তরফদার সেলিম।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ২৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ব্রীজটি নির্মাণ করছে। সোমবার (২১ জুন) দুপুরে এমপি আত্রাই নদীর পশ্চিম তীরে হাতুড় ইউনিয়নের সমাসপুরে ব্রীজটির নির্মাণস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি নির্মাণ এলাকা ঘুরে ঘুরে দেখেন, এলাকার মানুষের সাথে কথা বলেন এবং তাদের সাথে কথা বলে ব্রীজ নির্মাণের জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত জটিলতার নিরসন করেন।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আহসান হাবীব ভোদন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান মিলন, উপজেলা প্রকৌশলী সুমন মাহমুদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অনুকুল চন্দ্র সাহা বুদু, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাবেয়া রহমান পলি, হাতুড় ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক, এনায়েতপুর ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী
হাসান মিঞা, খাজুর ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন, নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অজিত মন্ডল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি গোলাম নুরানী আলাল, মোঃ আব্দুল খালেক, হাতুড় ইউপি নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী মোঃ মোশারফ হোসেন, যুবলীগ নেতা সাঈদ হাসান তরফদার শাকিল, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবুমুসা আল আশআরী, সাধারণ সম্পাদক তনু কুমার দেব, জাহাঙ্গীরপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি আহসান হাবিব, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি প্রমুখ এতে উপস্থিত ছিলেন।

দীর্ঘ বৈঠক শেষে ব্রীজ নির্মাণ সংক্রান্ত নানান সমস্যার সমাধান হওয়ায় মুনাজাত পরিচালনা করা হয়।

এমপি বলেন, ‘জননেত্রী শেখ হাসিনা ব্যাপক পরিশ্রম করে বাংলাদেশকে একটি উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করেছেন। তার আমলে সারাদেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে। এরই ধারাবাহিকতায় নওগাঁ-৩ এলাকায় চলছে উন্নয়ন কাজ। কালনা ব্রীজ নামে পরিচিত এই ব্রীজটি নির্মিত হলে এলাকার চেহারা পাল্টে যাবে। ব্যবসায় বানিজ্য, শিক্ষা, কৃষি, নগরায়ন প্রভৃতি ক্ষেত্রে এলাকা হবে উন্নত। তিনি এলাকার উন্নয়নে দলমত নির্বিশেষে সকলকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান।

উপজেলা প্রকৌশলী সুমন মাহমুদ জানান, ব্রীজটি ২৬২ দশমিক ৩ মিটার দীর্ঘ হবে। আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে এটির নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

উল্লেখ্য, দুবছর আগে ব্রীজটি টেন্ডার দেয়া হয়। কিন্তু ডিজাইন সংক্রান্ত জটিলতায় এর নির্মাণ কাজ দীর্ঘদিন বন্ধ থাকে। অবশেষে নতুন করে ব্রীজটির নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ায় এলাকার জনমনে চাঞ্চল্য ফিরে এসেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে