মান্দায় সমাজসেবীর সহায়তায় বিলের জলাবদ্ধতা নিরসন

প্রকাশিত: জুন ৭, ২০২১; সময়: ৫:২০ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, মান্দা : নওগাঁর মান্দায় রিং পাইপের সাহায্যে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করে দেওয়ায় মৈনম ইউনিয়নের ইটাকুড়ি বিলের জলাবদ্ধতার নিরসন হয়েছে। সমাজসেবক দেওয়ান ওয়ালি হোসেন পিন্টুর সহায়তায় সোমবার দিনভর স্থানীয় বাসিন্দারা স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে কাজটি বাস্তবায়ন করেন। এতে করে দুর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা পেলেন দুর্গাপুর মধ্যপাড়া গ্রামের দেড় সহস্রাধিক মানুষ।

স্থানীয়রা জানান, দুর্গাপুর মধ্যপাড়া হয়ে ইটাকুড়ি বিলের ভেতর দিয়ে কদমতলী বাজারে যাতায়াতের একটি সহজ রাস্তা রয়েছে। এ রাস্তা দিয়ে দুর্গাপুর, নলকুড়িসহ কয়েকটি গ্রামের মানুষ সহজেই কদমতলী বাজার, পাঠাকাটা, সতিহাট ও মহাদেবপুর উপজেলা সদরে যাতায়াত করেন।

কিন্তু বিলের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় বর্ষা মৌসুমে এলাকার লোকজনকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এ সময় বিভিন্ন এলাকাঘুরে ওইসব গন্তব্যে যেতে হয় তাদের। অন্যদিকে এ রাস্তা ব্যবহার করে মান্দার গনেশপুর ইউনিয়ন ও মহাদেবপুর উপজেলার সফাপুর ইউনিয়নসহ কয়েকটি গ্রামের লোকজন দুর্গাপুর, নলকুড়ি, বর্দ্দপুর, রায়পুর, মৈনমসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করে থাকেন।

দুর্গাপুর মধ্যপাড়া গ্রামের বাসিন্দা নজরুল ইসলাম, আফজাল হোসেনসহ আরও অনেকে জানান, এ গ্রামে কমিউনিটি ক্লিনিক, একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি নুরানী হাফেজিয়া মাদরাসা রয়েছে। ইটাকুড়ি বিলের এ রাস্তা ব্যবহার করে বিভিন্ন গ্রামের রোগিরা সহজেই কমিউনিটি ক্লিনিকে চিকিৎসাসেবা নিতে আসেন। খরা মৌসুমে অসুবিধা না হলেও বর্ষায় তাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

গ্রামের জাইদুর রহমান, দেলোয়ার হোসেন ও জালাল হোসেন বলেন, ইটাকুড়ি বিলে থেকে শোলাকুড়ি বিল পর্যন্ত খাল খনন করা হলে এ বিলের পানি সহজেই নিষ্কাশন হবে। এতে করে বিলটিতে সবমৌসুমেই বিভিন্ন ধরণের ফসল উৎপাদন করা যাবে।

দুর্গাপুর শ্রমজীবী সমবায় সমিতির সভাপতি জামাল হোসেন বলেন, সমাজসেবক পিন্টু সহায়তায় বিলের রাস্তায় রিং পাইপ বসিয়ে পানি নিষ্কাশনের সাময়িক সমাধান করা হয়েছে। রাস্তাটি ৩ ফুট উঁচু ও পানি নিষ্কশনের জন্য একটি কালভার্ট নির্মাণ করা হলে এটির স্থায়ী সমাধান হবে।

এ প্রসঙ্গে সমাজসেবক দেওয়ান ওয়ালি হোসেন পিন্টু বলেন, গ্রামটিতে গবাদিপশুর চিকিৎসাসেবা দিতে এসে রাস্তাটির বেহাল অবস্থা চোখে পড়ে। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার লোকজন পানি-কাদা ভেঙে চলাচল করছেন। এ অবস্থা দেখে গ্রামের লোকজনকে উদ্বুদ্ধসহ সহায়তা দিয়ে কাজটি বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে