সিরাজগঞ্জে পরকীয়া প্রেম ও পরিবারে অশান্তিতে দুইজনের আত্মহত্যা

প্রকাশিত: মে ২৬, ২০২১; সময়: ৬:১২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে স্ত্রীর পরকীয়ার আদিবাসী চন্দন কুমার বাশফর (৩২) ও পরিবারে অশান্তির কারণে ফরিদুল ইসলাম (২৬) নামের দুই যুবক আত্মহত্যা করেছেন। বুধবার সকালে পুলিশ ফরিদুল ও দুপুরে চন্দনের মরদেহ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে মর্গে পাঠিয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে উপজেলার নলকা ইউনিয়নের ফরিদপুর ও পার্শ্ববতী শেরপুর উপজেলার প্যান্টাগন হোটেল এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ফরিদুল ইসলাম (২৮) নলকা ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে ও চন্দন কুমার বাশফর (৩২) চান্দাইকোনা ইউনিয়নের হাওলাদার পাড়ার সুখিল কুমারের ছেলে।

স্থানীয়রা ও পুলিশ জানায়, দীর্ঘদিন যাবত পারিবারিক অশান্তিতে ভুগছিলেন ফরিদুল ইসলাম। মঙ্গলবার রাতে ফের স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। এতে রাগে ক্ষোভে অভিমানে ফরিদুল ইসলাম গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। তাৎক্ষনিকভাবে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে মর্গে পাঠায়।

চান্দাইকোনা ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, শেরপুরের প্যাটাগণ হোটেলে পরিচ্ছন্ন কর্মী হিসেবে চাকুরি করতেন চন্দন কুমারের স্ত্রী পূর্ণিমা রাণী। চাকুরি করাকালীন সময়ে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন পূর্ণিমা। এ ঘটনায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্য প্রায়ই ঝগড়া লাগতো। এনিয়েই পরিবারে চরম অশান্তি লেগেই থাকতো। নানা কারণেই গত সপ্তাহে সামাজিকভাবে স্ত্রী পূর্ণিমা তাঁর স্বামী চন্দনের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়।
এতে রাগে, ক্ষোভে ও অভিমানে প্যান্টাগণ হোটেলের সামনে গ্যাসের ট্যাবলেট পান করে চন্দন কুমার বাশফর। স্থানীয়রা বগুড়া শহীদ জিয়াউর রমান মেডিকেল কলেজে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।

এ বিষয়ে রায়গঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, শেরপুরের প্যান্টাগন হোটেল এলাকায় গ্যাসের ট্যাবলেট খেয়ে চন্দন কুমার নামে এক যুবকের আত্মহত্যা ও সাহেবগঞ্জের ফরিদপুরে ফরিদুল ইসলামের নামে আরও এক যুবকের আত্মহত্যার কথা কথা শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হবে। তবে এই দুটি ঘটনা হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা ময়নাদন্তের পর জানা যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে