শাহজাদপুরে মোবাইলে গেম খেলা নিয়ে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৪০, আটক ১৪

প্রকাশিত: মে ১৯, ২০২১; সময়: ২:৫২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের কৈজুরী ইউনিয়নের গোপালপুরে মোবাইলে গেমস খেলাকে কেন্দ্র করে বর্তমান ইউপি সদস্য চুন্নু ও সাবেক মেম্বর আব্দুল গফুরের গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছে।

এর মধ্যে গফুর মেম্বর গ্রুপের গুরুতর আহত আবু হানিফ (৫২), রেজাউল (২৫), আমিরুল (২৮), আব্দুর রউফ (৪০),আনজিরা বেগম (৫৫), কালা চাঁদ (২৪), আলিলম (২৭), মিজান(২২), কাদের (২৫), কবির (২০) এবং চুন্নু মেম্বর গ্রুপের আব্দুল্লাহ প্রাং (৩৫), রইচ (৩৫), মোহাম্মদ জোয়ার্দ্দার (৫০), রাকিব (৩০), পলাশ (৩০), রাজু (১৭), আবু দাউদ (৩৫), ইন্জিল (৫৫), আনোয়ারা বেগম (৪৫), শরিফুল (৩০), মিলন (৩৫), উজ্জল (২৫), মামুন (২০) কে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও সিরাজগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল সহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশ চুন্নু মেম্বর গ্রুপের ৪ নারী সহ ১৪ জনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে এ দুটি গ্রুপের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এর প্রেক্ষিতে বুধবার সকাল ১১ টার দিকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’ গ্রুপের লোকজন লাঠিসোটা, ফালা, হাসুয়া, ইটপাটকেল নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। দফায় দফায় চলা সংঘর্ষে আহত হয় উভয় পক্ষের অন্তত ৪০ জন।

খবর পেয়ে শাহজাদপুর সার্কেলের এএসপি এবং শাহজাদপুর থানার অফিসার ইনচার্জসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌছলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তখন চুন্নু মেম্বর গ্রুপের ৪ নারী সহ ১৪ জনকে আটক করা হয়। পুনরায় সংঘাত এড়াতে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল গফুর জানান, দীর্ঘদিন ধরে বর্তমান মেম্বর চুন্নুর লোকজন এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আসছিল। সর্বশেষ তৃতীয় পক্ষের দুই ছেলের মোবাইল গেমস খেলাকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব শুরু হয়।

গত মঙ্গলবার বিকেলে তার গ্রুপের গরু ও মুদি দোকান ব্যবসায়ী আমিরুলকে মারধর ও তার কাছে থাকা গরু বিক্রির টাকা ছিনিয়ে নেয় চুন্নুর লোকজন। এরপর বুধবার সকালে পরিকল্পিত ভাবে তার পক্ষের প্রবাসী নজরুলের বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটতারাজ করলে তাদের লোকজন সংঘটিত হলে সংঘর্ষ বাঁধে।

অপরদিকে বর্তমান ইউপি সদস্য চুন্নু জানান, গফুর মেম্বরের লোকজন বুধবার সকালে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে ৫০/৬০ জন লাঠিসোটা দেশি অস্ত্র, সস্ত্র নিয়ে তার গ্রুপের হাবিলের বাড়ীতে হামলা করে। খবর পেয়ে তার লোকজন প্রতিরোধ গড়ে তুললে সংঘর্ষ বাঁধে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, কৈজুরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম নিরপেক্ষ থাকার পরিবর্তে উল্টো গফুর মেম্বরের পক্ষে কাজ করছেন। তিনিই দু’ পক্ষের সংঘর্ষ উস্কে রেখেছেন। পুলিশ তাদের লোকজনকে হয়রানি করছে।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি কারো পক্ষে নই। দু’ পক্ষকে বার বার শান্ত করার চেষ্টা করেছি। সংঘর্ষের খবর পেয়ে সেখানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ পাঠিয়েছি। বর্তমানে এলাকায় আতঙ্ক, উৎকন্ঠা ও রমরমা পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে শাহজাদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহিদ মাহমুদ খান বলেন, গেমস খেলাকে কেন্দ্র করে চুনু মেম্বর ও গফুর মেম্বরের পক্ষের মধ্যে এ সংঘষের্র সৃষ্টি হয়েছে। উভয় পক্ষকে বার বার বারন করা হলেও কর্ণপাত করেনি। তারা উল্টো পুলিশের উপর হামলা করেছে। সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আমরা এখন প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করছি।

  • 32
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে