আদমদীঘির কায়েতপাড়ায় মিলেমিশে ঈদ আনন্দ 

প্রকাশিত: মে ১৫, ২০২১; সময়: ৪:৩২ pm |
নিজস্ব প্রতিবেদক, আদমদীঘি : পবিত্র ঈদুল ফিতর সমাগত, তবুও থেমে নেই ঈদ আনন্দ। এক মাস সিয়াম সাধনার পর এসেছে ঈদ, যা বয়ে আনবে সকলের জন্য অনাবিল আনন্দ। ছোট বাচ্চা থেকে বয়স্করা সবাই ঈদের আনন্দকে বরণ করে নেয়ার জন্য উদগ্রীব। ঈদ আনন্দের বেশিরভাগ জুড়েই থাকে নানা রকমের খাবারদাবার। তবে বগুড়ার আদমদিঘী উপজেলার কায়েতপাড়া গ্রামে তার এবার ভিন্ন ধারার খাবারের আয়োজন দেখা গেছে যা ছিলো বিগত শতবর্ষ ধরে, মাঝে একটু বিলম্ব হলেও এইবার তার কার্যক্রম করা হয়েছে।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগের দিন বৃহস্পতিবার কায়েতপাড়া গ্রামে এক হাজার পরিবার নিয়ে একত্রিত হয়ে এক জায়গায় রান্না করা সুস্বাদু খাবার রান্না করা হয়। আর এই খাবার প্রতিটি পরিবারের সদস্যদের মাঝে বিতরণ করা হয়। পবিত্র ঈদের নামাজ শেষ করে সকলে নিজ নিজ বাড়ীতে একই সঙ্গে  খাবার খেয়ে ঈদ উদযাপন করেন। এই দৃষ্টান্ত খাবার বিতরণ করা হয় সাবেক মেম্বার নাজিম উদ্দীনের বাড়ি থেকে।

এই গ্রামের একজন আয়োজন কারি সোহাগ হোসেনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, আমাদের কায়েতপাড়া গ্রামে গরিব, অর্থবিত্ত, মধ্যবিত্তসহ সকল ধরনের পরিবার রয়েছে। তবে করোনাকালীন সময়ে একজন অর্থবান পরিবার ভালো খাবার খাবে আর নিম্ন পরিবার একটু খারাপ খাবার খাবে এটা আসলে ঈদের দিন একটু খারাপ দেখায়, তাই মুরব্বিদের সাথে কথা বলে এই আয়োজন যাতে আমরা একবেলা সকলে একই খাবার একসঙ্গে খেতে পারি তাতে আমাদের মনে ঈদের এক অন্যরকম আনন্দ বিরাজ করবে।

এ সময় সাবেক মেম্বার নাজিম উদ্দীনের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, আমরা এই আয়োজন করেছি কায়েতপাড়া গ্রামের সকলকে নিয়ে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে, এই আয়োজন সকলের সহযোগিতায় আল্লাহর অশেষ রহমতে তা সম্পন্ন করতে পেরেছি, তবে কারো মনে কোন সংকোচন সৃষ্টি না হয় এজন্য প্রতিটি পরিবার থেকে নেওয়া হয়েছে ৫০ টাকা আর ৫০০ গ্রাম করে চাল। আপনারা সকলে দোয়া করবেন এই আয়োজন জেনো প্রতি বছর ধরে রাখতে পারি।

এই দৃষ্টান্ত খাবারের আয়োজকরা হলেন কায়েতপাড়া গ্রামের মুরব্বিগন থেকে শুরু করে যুবসমাজ ও তরুণ উদীয়মান বাক্তিরা, উপস্থিত ছিলেন  জাকির হোসেন কাজল (সমাজসেবক)  সাজ্জাদ মৃধা  (সমাজসেবক) আবু বক্কর সিদ্দিক (সমাজসেবক) মান্নান মৃধা (সমাজসেবক) হামিদুল ইসলাম (সমাজসেবক) দিলবর হোসেন (সমাজসেবক) হযরত আলী (সমাজসেবক) সফির উদ্দীন (সাংবাদিক ও সমাজসেবক) নাজিম উদ্দীন (সাবেক মেম্বার ও সমাজসেবক) সোহাগ হোসেন (সাংবাদিক ও সমাজসেবক) রায়হান আলী (সমাজসেবক)  সালাম মৃধা (সমাজসেবক)  লুৎফর রহমান (সমাজসেবক) আদিল হোসেন (সমাজসেবক) এছাড়া তরুণ যুবসমাজের আরোও ছিলেন, হাসান, হারুন, সালাম, সোহেল, জালাল, নাসির, জামাল ও কুদ্দুসসহ গ্রামের আরো অনেকে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে