নিয়ামতপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষ নিহত ১, গ্রেপ্তার ৫

প্রকাশিত: এপ্রিল ২২, ২০২১; সময়: ১:০৬ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিয়ামতপুর : নওগাঁর নিয়ামতপুরে বোরো ধান কাটাকে কেন্দ্র করে তীর ধনুক নিয়ে দুই পক্ষের আদিবাসীদের সংঘর্ষে ১ জন নিহত ও ২ মহিলাসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়েছেন। এ সময় গুরুতর আহত ৪ জনকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (২১ এপ্রিল) দুপুর ৩টায় উপজেলার পাড়ইল ইউনিয়নের মাসনা ধানের ক্ষেতে এই সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় ৫জনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটক ব্যক্তিরা হলেন, উপজেলার পাড়ইল ইউনিয়নের বান্দইল গ্রামের মৃত- লাল মহাদেবের ছেলে শ্রী ক্ষিতিশ কুজুর (৫০), শ্রী সেবেনের ছেলে শ্রী মিলন (২৭), মৃত- সামীর সরদারের ছেলে শ্রী লক্ষিন্দর (৫০), মৃত- বিফলের ছেলে শ্রী সুশান্ত (৩৫) এবং গৈল গ্রামের মৃত- গিরিসের ছেলে শ্রী সবিলাল (৪০)।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার পাড়ইল ইউনিয়ন বান্দইল বিচিবাড়ী গ্রামের মৃত- তারণ সরদারের আরএস রেকর্ডভুক্ত ৩ একর ৫৬ শতক জমি মৃত- মসি সরদারের ছেলে বুধু সরদার, তারানু সরদার, বিধানের ছেলে খোকা টপ্প, মৃত-তারণ সরদারের ছেলে বিধান সরদার বোরাধান রোপন করেন।

বুধবার বেলা ৩ টায় উল্লেখিত ব্যক্তিরা বোরো ধান কাটতে গেলে মাসনা গ্রামের জগলালের ছেলে বঙ্গপাল তার ভাড়াটিয়া লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে হাসুয়া, তীর ধনুকসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আক্রমন করলে বান্দইল বিচিবাড়ী গ্রামের মসি সরদারের ছেলে বুধু (৬০), তারানু (৬৫), মন্টুর স্ত্রী বুঝমনি (৫০), মৃত- খগনার ছেলে সারিতন (৩৫) চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার হরিসপুর দেওপুরা গ্রামের মজিদের ছেলে বিজয় (১৫), পোরশা উপজেলার নোনাহার গ্রামের সিনাই এর মেয়ে কবিতা (১৯), এবং আক্রমনকারীদের মাসনা গ্রামের মহাদেবের ছেলে অতিস কুজুর (৫০), দেবেন্দ্রর ছেলে রিপন (৩০), প্রসান্ত (৩৫) আহত হয়। আহতদের প্রথমে নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধু (৬০) মারা যায়।

বাঁকী আহতদের মধ্যে গুরুতর হওয়ায় সারিতন এর হাতে তীর ধনুক বিদ্ধ অবস্থায় এবং কবিতা, এবং তারানুকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিক্যাল অফিসার আহমেদ জানান, প্রত্যেককেই প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আগেই বিজয়, সারিতন এবং কবিতাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বুধু এবং তারানুকেও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের প্রস্তুতি চলছিল। এমতাবস্থায় বুধু মারা যায়।

নিয়ামতপুর থানার অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির বলেন, ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। তাৎক্ষনিক ৫জনকে আটক করতে সক্ষম হয়েছি।

  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে