ঈশ্বরদীতে রগ কেটে ছাত্রলীগ নেতাকে হত্যা চেষ্টা

প্রকাশিত: মার্চ ২৪, ২০২১; সময়: ১১:৪৫ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবনার ঈশ্বরদীতে আধিপত্য বিস্তারের জেরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের গোলাগুলি ও ছুরিকাঘাতের ঘটনায় অন্তত ৯ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা এসএম রাতুল হাসানের পায়ের রগ কেটে দেওয়া হয়েছে। বুধবার সকাল ১১টার দিকে শহরের কলেজ গেটের সামনে এ সংঘর্ষ হয়।

এ ঘটনায় বিকেলেই অস্ত্রসহ ছাত্রলীগের তিন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তারা হলো- ঈশ্বরদী উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আহত রাকিবুল হাসান রনি, ছাত্রলীগ কর্মী আমজাদ হোসেন ও আকমল হোসেন।

সংঘর্ষের ঘটনায় গুরুতর আহত রাতুল কলেজ ছাত্রলীগের প্রস্তাবিত কমিটির যুগ্ম সম্পাদক বলে জানা গেছে। তাকে প্রথমে পাবনা ও পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহত অন্যরা হলেন- ছাত্রলীগের ৬নং ওয়ার্ড শাখার সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন, ছাত্রলীগ কর্মী শুভ, ইমরান, রুবেল, চমনসহ ৯ জন।

পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রনির মালিকানাধীন বিপু এন্টারপ্রাইজের দোকানে তালা মেরে দিলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের পর পুলিশ এসে ওই দোকানের তালা খুলে দেয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, কলেজের সামনের একটি চায়ের দোকানে রাতুলসহ কয়েকজন আড্ডা দিচ্ছিল। সেখানে ছাত্রলীগ নেতা শাকিল হোসেন উপস্থিত হলে তাকে মারধর করা হয়। খবর পেয়ে রনিসহ কয়েকজন সেখানে উপস্থিত হলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শোনা যায়।

রাতুলের বড় ভাই এস এম রুশদি হাসান মিলন জানান, রনির আঘাতে রাতুল রাস্তায় পড়ে গেলে তাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও পায়ের রগ কেটে দেওয়া হয়। এ সময় ছাত্রলীগ সভাপতি রনিও ছুরিকাহত হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রনি বলেন, আধিপত্য বিস্তার করতে রাতুল, শুভ, রিপন, রুবেল, আমজাদ ও চমনসহ আরও কয়েকজন আমার দোকানে তালা মারে। তাদের কাছে তালা মারার কারণ জানতে চাইলে আমাকে ও শাকিলকে ছুরিকাঘাত করা হয়। এই খবর পেয়ে অন্যরা সেখানে এলে সংঘর্ষ বাধে।

  • 124
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে