গ্রেপ্তার এড়াতে শরীরে পেট্রোল ঢেলে আগুন জেলে আত্মহত্যা

প্রকাশিত: মার্চ ১৭, ২০২১; সময়: ১১:১৩ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জের দুর্গম যমুনার গটিয়ার চরে পুলিশে হাত থেকে বাঁচতে শরীরে নিজেই পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে আত্মহত্যা করেছে মোটরসাইকেল চোর দলের এক সর্দার। মৃত জুয়েল রানা (৩৫) গটিয়া গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে। সে এলাকার চিন্থিত সন্ত্রাসী ও ৯টি মামলার আসামী। বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনায় চারটি চোরাই মোটর সাইকেল সহ তার বসত ঘর পুড়ে গেছে।

সিরাজগঞ্জ সদর থানার ওসি বাহাউদ্দিন ফারুকী জানান, নিহত জুয়েল রানার নেতৃত্বে মাঝে মাঝেই মোটর সাইকেল চুরির ঘটনা ঘটছে। মূলত মামলার সূত্র ধরেই বুধবার দুপুরে সদর থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ বিশেষ নৌকা যোগে যমুনা নদী পার হয়ে কাওয়াকোলা ইউনিয়নের গটিয়ারচর গ্রামে জুয়েলের বাড়ীতে অভিযান চালায়।

ওসি বলেন, জুয়েল বাড়ীতে নিজের ঘরেই অবস্থান করছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জুয়েল ঘরের দরজা আটকে বসে থাকে। অনেক ডাকা ডাকির পর সে দরজা না খুলে পুলিশ সদস্যদেরকে তার বাড়ী ছেড়ে চলে যেতে বলে এবং নানা ভাবে হুমকী ধমকী দেয়। এক পর্যায়ে পুলিশ এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে ঘটনাস্থলে ডেকে পাঠান।

চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ মাস্টার ওয়ার্ডের মেম্বর জহুরুল ইসলামকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জুয়েল রানাকে দরজা খোলার জন্য ডাকাডাকি করেন। তাতেও তার সাড়া মেলেনি। বিকেলের দিকে ঘরের ভিতর থেকে আগুনের শিখা বের হতে দেখা যায়। এসময় পুলিশ দরজা ভেঙ্গে ভিতর থেকে আগুনে পোড়া জুয়েলের মৃত দেহ উদ্ধার করে। তখন ঘরের মধ্যে থাকা চারটি চোরাই মটোর সাইকেলও পুড়ে যায়।

ওসি বাহাউদ্দিন আরও বলেন অভিযুক্ত জুয়েল হোসেনের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী ছিনতাই রাহাজানি এবং চুরির অভিযোগে আটটি মামলা সহ বেশ কয়েকটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। এছাড়া তিনি একটি মামলার সাজাপ্রাপ্ত প্রাপ্ত পলাতক আসামী।

কাওয়াকোলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য জহুরুল ইসলাম জানান, আমাদের ধারনা পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে জুয়েল ঘরের ভিতর থাকা মোটরসাইকেলের পেট্রল নিজের শরীরে ঢেলে তাতে আগুন লাগিয়ে আত্বহত্যা করেছে।

  • 67
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে