নিয়ামতপুরে তুচ্ছ ঘটনায় থানায় অভিযোগ

প্রকাশিত: মার্চ ১৪, ২০২১; সময়: ৪:১৮ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নিয়ামতপুর : নওগাঁর নিয়ামতপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ৫ মহিলাসহ ১০জনকে আসামী করে থানায় মামলা। দু’পক্ষের লোকজন পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন। ঘটনাটি উপজেলা পাড়ইল ইউনিয়নের রাওতাল গ্রামে।

সরেজমিনে জানা যায়, নিয়ামতপুর উপজেলার পাড়ইল ইউনিয়নের রাওতাল গ্রামের মৃত- নজিরের ছেলে জিয়ার সাথে তারই ভাতিজি জামাই একই ইউনিয়নের মাসনা গ্রামের মৃত- মোজাম্মেল হকের ছেলে তাছাদ্দেকের বসতভিটা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। তারই সূত্র ধরে গত ১ মার্চ জিয়ার ও তাছাদ্দেকের শ্বশুড়বাড়ীর বাইরে সামান্য কথা কাটাকাটি ও ধাক্কাধাক্কির কারণে তাছাদ্দেক জিয়ার দুই স্ত্রী জাবেদা (৫৫), কুলসুম (৪২), এক মেয়ে ফেরদোসী (৩৩), এবং দুই পুত্রবধু মমতাজ (৩২), ইসরাত (৩১)সহ জিয়ার (৬০), চারপুত্র মোনা (৩৫), জাহাঙ্গীর বাবু (৩৯), রবিউল (৩২), তারা (৪২)কে আসামী করে মামলা দায়ের করে।

এ বিষয়ে জিয়ার বলেন, আমাদের পুকুরে যাওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে। পুকুরে যেতে দেয় না। ব্র্যাক স্কুল রয়েছে সে রাস্তাও বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। সেদিন বসতভিটা ও রাস্তা বন্ধ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়েছে, সামন্য ধাক্কাধাক্কিও হয়েছে, তবে কোন মারামারি হয়নি। তার পরেও আমাকে ও আমার পরিবারের সকলকে আসামী করে থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

মামলার বাদী তাছাদ্দেকের শ্যালক রনি বলেন, সেদিন জোরপূর্বক বিরোধীয় সম্পত্তি দখলের চেষ্টা করে। বাধা দিতে গেলে আমার চাচা জিয়ার ও চাচাতো ভাই ও ভাইয়ের স্ত্রীরা লাঠি নিয়ে মারামারি শুরু করে। আমার মাথায় লাঠি দিয়ে জোরে আঘাত করে আমি অল্পের জন্য রক্ষা পাই। কিন্তু আমার ভগ্নিপতি তাছাদ্দেককে মেরে মারাত্মকভাবে আহত করে।

এ বিষয়ে থানার অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির বলেন, মামলা হয়েছে তদন্ত সাপেক্ষে আদালত ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

  • 15
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে