নওগাঁর মান্দায় শীত নিবারনের জন্য কম্বলই তাদের সম্বল

প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২১; সময়: ৯:১২ pm |

নিজস্ব প্রতিবেদক, নওগাঁ : নওগাঁর মান্দায় ৮হাজার ১শত ৪০ পিচ মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। মান্দা উপজেলা প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সরকার থেকে বরাদ্দকৃত কম্বল এতিম খানা, আদিবাসি গোষ্ঠী এবং সরাকারি আবাসন প্রকল্পের আওতায় বসবাসকৃত পরিবারগুলোকে বিতরণের জন্য অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে মান্দা উপজেলা প্রশাসন। সরকারি বরাদ্দ ৬হাজার ৪শত ৪০পিচ কম্বল এবং ৬লক্ষ টাকা থেকে ক্রয়কৃত ১৭০০ পিচ কম্বল ইতিমধ্যে অসহায় দুঃস্থ পরিবারগুলোর মাঝে বিতরণ সম্পুর্ন হয়েছে।

নওগাঁয় শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে বেড়েছে গরীব অসহায় মানুষের কষ্ট। শীত নিবারনের জন্য কম্বলই হচ্ছে তাদের সম্বল। সরকার কর্তৃক কম্বল পেয়ে গরীব অসহায় মানুষদের শীতকালীন কষ্ট থেকে কিছুটা হলেও স্বস্তি অনুভব করে। নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলা সর্বোমোট ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত।

এসকল ইউনিয়নে অবস্থিত আদিবাসী সম্প্রদায়, এতিম খানা, সরাকারি আবাসন প্রকল্পে অবস্থানরত পরিবারগুলোর মাঝে শীতবস্ত্র (কম্বল) পেয়ে গরীব অসহায় মানুষগুলো উপকৃত হয়েছে। তাছাড়া গ্রামীণ অবকাঠামোতে শীতের প্রকোপ বেশি হওয়ার ফলে কম্বল এ সকল প্রয়োজনীয় মেটাতে সহায়তা করে থাকে।

মান্দা উপজেলার ১১ং কালিকাপুর ইউনিয়নে ইতিমধ্যে উপজেলা থেকে বরাদ্দকৃত প্রায় ৩০০ পিচ কম্বল বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে। উপকারভুগীরা কম্বল পেয়ে শীতের কষ্ট লাঘবের কথা জানিয়েছেন। ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের ৬৫বছর বয়সী বৃদ্ধ ছলিম উদ্দিন জানিয়েছেন কম্বল পেয়ে তিনি খুব খুশি। এই শীতের যে প্রকোপ তার হাত থেকে কম্বলটি তাকে বাঁচাতে সহায়তা করবে।

পরিবার অভাব অনটনের মধ্য দিয়ে যাওয়ার ফলে কম্বল কেনা তার পক্ষে সম্ভব ছিলো না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া কম্বল তাকে শীতের হাত থেকে বাঁচাতে সহায়তা করবে। তাই প্রধানমন্ত্রী ও তার সরকারের প্রতি ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এই উপকারভুগী।

অপরদিকে ৫৫বছর বয়সী স্বামীহারা বেলী খাতুন জানান- শেখের বেটির ( প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ) দেওয়া কম্বল তাকে তীব্র শীতের হাত থেকে রক্ষা করবে। স্বামী বিয়োগের পর থেকে পরিবার নিয়ে অভাব অনটনের মধ্যদিয়ে দিন কাটানোর ফলে কম্বল কেনার সামর্থ্য তার নাই। সরকার থেকে পাওয়া এই কম্বলই শীত নিবারনের জন্য একমাত্র সম্বল বলে তিনি জানান।

এদিকে মান্দা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম তালুকদার জানান, উপজেলায় সর্বোমোট ৮হাজার ১শত ৪০ পিচ কম্বল বিতরণ শেষ হয়েছে। উপজেলায় বরাদ্দকৃত কম্বল ৬হাজার ৪শত ৪০ পিচ এবং কম্বল কেনার জন্য ৬লক্ষ টাকার বরাদ্দে ১৭০০পিচ কম্বল কিনে ৮হাজার ১শত ৪০টি পরিবারের মাঝে তা বিতরণ করা হয়। বরাদ্দকৃত ৬লক্ষ টাকা দিয়ে ১৭০০ পিচ কেনা কম্বলে যা প্রতি পিচ ৩৫২টাকা দরে কেনা হয়। ইতিমধ্যে সকল কম্বল অসহায় দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা শেষ হয়েছে। এ সকল কম্বল গরীব অসহায় পরিবারগুলো পেয়ে উপকৃত হয়েছেন বলে তিনি জানান।

এদিকে মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হালিম জানান- বরাদ্দকৃত সকল কম্বল অসহায় দরিদ্রদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। এতিম খানা, আদিবাসী জনগোষ্ঠী এবং সরকারী আবাসন প্রকল্পের আওতায় থাকা পরিবারগুলোকে কম্বল বিতরণের জন্য অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। কম্বলগুলো বিতরণের কাজ ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে।

এদিকে সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী এবং নওগাঁ -০৪ আসনের সংসদ সদস্য ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক বলেন- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের সর্বোস্তরের মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। কোন মানুষ যেন এই শীতে কষ্ট না পায় তার জন্য দেশের প্রতিটি জেলা, উপজেলা এবং ইউনিয়নের অসহায় দরিদ্র মানুষদের মাঝে সরকারীভাবে কম্বল বিতরণ করে যাচ্ছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় মান্দা উপজেলায় ৮হাজার ১শত ৪০টি পরিবারের মাঝে কম্বল বিতরণের কাজ শেষ হয়েছে। তিনি বলেন- মান্দায় অসহায় দরিদ্র মানুষ যারা একটি কম্বলের জন্য শীতে কষ্ট করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসকল মানুষের কষ্ট লাঘবের কথা চিন্তা করে কম্বলগুলো দিয়েছেন। মান্দা উপজেলা প্রশাসন ইতিমধ্যে কম্বল বিতরণের কাজ সম্পন্ন করায় উপজেলার সকল কর্মকর্তার প্রতি ধন্যবাদ জানান এই সাংসদ।

  • 13
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে